ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে দিল্লিতে হতে চলা প্রথম টি-২০তে সংকটের মেঘ, খেলোয়াড়দের প্রাণ সংশয় 1

ভারতের রাজধানী দিল্লিকে তে তো এমনিতে ভীষণই সুন্দর শহর বলে ধরা হয়ে থাকে। কিন্তু এখানে দূষণের স্তর একটু বেশিই। একটা বড়ো হাইটেক শহর হওয়ার কারণে এখানে বায়ু দূষণ শহরেই মিশে যায় যা শহরের বাইরে বেরতে পারে না। এই অবস্থায় সমস্যা তৈরি হওয়া স্বাভাবিক।

দীপাবলীর দূষণে দিল্লিতে প্রথম টি-২০ হতে পারে মুশকিল

ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে দিল্লিতে হতে চলা প্রথম টি-২০তে সংকটের মেঘ, খেলোয়াড়দের প্রাণ সংশয় 2

ভারত আর বাংলাদেশের মধ্যে তিন ম্যাচের টি-২০ সিরিজের শুরুও দিল্লিতেই শুরু হচ্ছে যেখানে ৩ নভেম্বর নতুন নামকরণের সঙ্গে অরুণ জেটলি ক্রিকেট স্টেডিয়ামে খেলা হবে। এই ম্যাচের টিক আগে ভারতে দীপাবলীর উৎসবের পরিবেশ রয়েছে। এই অবস্থায় রাজধানীতে বায়ু দূষণ বৃদ্ধি পেতে পারে যা ভারত আর বাংলাদেশের মধ্যে হতে চলা টি-২০ ম্যাচে চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

দীপাবলীর পর ভারত-বাংলাদেশ ম্যাচে বায়ুদূষণের বিপদ

ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে দিল্লিতে হতে চলা প্রথম টি-২০তে সংকটের মেঘ, খেলোয়াড়দের প্রাণ সংশয় 3

২০১৭য় শ্রীলঙ্কার দল যখন ভারত সফরে এসেছিল তো সেই সময় দিল্লীতে খেলা হওয়া টেস্ট ম্যাচে বায়ু দূষণে খেলোয়াড়দের নিঃশ্বাস নিতে যথেষ্ট সমস্যা হতে দেখা গিয়েছিল, যেখানে মাস্ক পরে শ্রীলঙ্কান খেলোয়াড়দের মাঠে নামতে দেখা গিয়েছিল। দীপাবলীর কিছুদিন আগেই এয়ার ইনডেক্সে দিল্লির শহরের বায়ু দূষণের বিষয়ে র্যাীঙ্ক খারাপ ছিল আর দীপাবলীর পর তো এর হালত আরো খারাপ হতে পারে। যদিও ডিডিসিএ আর বিসিসিআইও মেনে নিয়েছে যে বায়ুদূষণের বিষয়ে দিল্লিতে সমস্যা হতে পারে। এখন টো তারা স্রেশ এই আশায় বসে রয়েছে যে দীপাবলীর প্রায় এক সপ্তাহ পরে ম্যাচের দিন পর্যন্ত পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে পারে।

বিসিসিআই এই দূষণ নিতে চিন্তিত

ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে দিল্লিতে হতে চলা প্রথম টি-২০তে সংকটের মেঘ, খেলোয়াড়দের প্রাণ সংশয় 4

বিসিসিআইয়ের এক আধিকারিক পিটিআইয়ের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে বলেছেন যে, “আমরা দেখেছি যে দিল্লিতে দীপাবলির পর বায়ু দূষণের পরিস্থিতি ছড়িয়ে পরে কিন্তু ম্যাচ এক সপ্তাহ দেরীতে রয়েছে, আম্যাডের আশা যে খেলোয়াড়দের কোনোভাবে স্বাস্থ্য সম্বন্ধী বিপদের মুখোমুখি হতে হবে না”। যদিও দীপাবলীর কারণে কেন্দ্র সরকারের তরফেও এই মুহূর্তে পাঞ্জাব-হরিয়ানায় ফসল কাটার পর খেতে বেঁচে যাওয়া খড়কুটোকে না জ্বালানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কারণ এর ধোঁয়া দিল্লির দিকে এগোতে পারে।

পাঞ্জাব-হরিয়ানাতে চাষীদের ফসলের খড়কুটো জ্বালাতে বাধা দেওয়ার নির্দেশ

পরিবেশ সচিব সি মিশ্রা বলেছেন যে আমরা পাঞ্জাব আর হরিয়ানাকে বলেছি যে, “আগামী কিছু গুরুত্বপূর্ণ দিনের জন্য কম সে কম সম্পূর্ণভাবে খড়কুটোকে জ্বালানো বন্ধ রাখতে। আগামী তিন সপ্তাহ, বিশেষ করে ২৬ অক্টোবর থেকে ৪ নভেম্বরের মধ্যে এর ধ্যান রাখা গুরুত্বপূর্ণ”।

Leave a comment

Your email address will not be published.