ধোনি মুখ খুললেন তাঁর ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা নিয়ে, বললেন ... 1

বিশেষ প্রতিবেদন: অধিনায়কত্ব ছাড়লেও টিম ইন্ডিয়ার জার্সিতে ২০১৯ বিশ্বকাপ পর্যন্ত খেলতে চান মহেন্দ্র সিং ধোনি। বুধবার গোটা দেশকে চমকে দিয়ে ওয়ান ডে ও টি-২০ অধিনায়কত্বের পদ ছাড়েন মাহি। তারপরই জল্পনা শুরু হয়ে যায়। তাহলে কি ২০১৯ বিশ্বকাপে দেখা যাবে তাঁকে? তবে যাবতীয় জল্পনার অবসান ঘটিয়ে ধোনির খুব কাছের একজন জানিয়ে দিয়েছেন, এখনই ক্রিকেট থেকে অবসরের কথা চিন্তা করতে চান না তিনি। বরং ২০১৯ বিশ্বকাপে খেলতে চান তিনি।

সেই সুত্র জানান ধোনি ২০১৯ বিশ্বকাপ পর্যন্ত খেলবেন। তার কথায়, “বিশ্বকাপ পর্যন্ত ওর খেলা নিয়ে আমার কোন সন্দেহ নেই। দেশের জন্য খেলার মোটিভেশনটা ওর এখনও খুব জোরালো। সিদ্ধান্তটা নেওয়ার পর ধোনি পরিষ্কার জানিয়ে দেয়, ভারতের জার্সিতে ও খেলাটা চালিয়ে যেতে চায়। ২০১৯ বিশ্বকাপেও খেলতে চায়।”

সেই সুত্র আরও মনে করেন, “এ বার ক্রিকেটে ধোনি আরও বেশি করে মন দিতে পারবে। বেশ কিছুদিন খেলাটা চালিয়েও যেতে পারবে। এখন ওর বয়স ৩৫। দারুণ ফিট। সর্বোচ্চ পর্যায়ের ক্রিকেটে ফিটনেসটা ধরে রাখতে সে রকমই পরিশ্রম করে। দশ বছর আগেও ও এত ফিট ছিল বলে আমার মনে হয় না। দেশের অন্য কিংবদন্তি ক্রিকেটাররা যদি ৩৮-৪০ বছর পর্যন্ত খেলা চালিয়ে যেতে পারে, তা হলে ধোনিই বা পারবে না কেন?”

ধোনির এই সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্তটা অবশ্য ক্রিকেটার বিশেষজ্ঞদের মোটেও অবাক করেনি। তাঁরা মনে করছেন, বিরাট কোহলিকে আরও বেশি করে সময় দিতেই এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মাহি। ধোনির লক্ষ্য ২০১৯ বিশ্বকাপ খেলা। তবে সেটা সত্যি করতে হলে বেশি কিছু ‘হার্ডল’ পেরোতে হবে তাঁকে। তাঁর পরের পরীক্ষা হল চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি। সেখানে ধোনিকে ভাল পারফর্ম করতে হবে। শুধু তাই নয়। এখন প্রতিটা টুর্নামেন্টই তাঁর কাছে একটা চ্যালেঞ্জ। রান করতে পারলে তিনি দলে থাকবনে। আর না পারলে সরে যেতে হবে যেমন ২০০৮ সালে সরতে হয়েছিল সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় ও রাহুল দ্রাবিড়কে।

তবে ধোনির একটা সুবিধা রয়েছে। এখনও পর্যন্ত অনায়াসে ভারতের সব থেকে ফিট ক্রিকেটারের তকমা পেতে পারেন তিনি। তাঁর রানিং বিটুইন দ্য উইকেটস এখনও অসাধারণ। উইকেটরক্ষক হিসেবেও তিনি বিশ্বের অন্যতম সেরা। ম্যাচ শেষ করার দিক দিয়ে তাঁর কোন তুলনা হয় না। তাই নিজেকে ঠিক জায়গায় ধরে রাখলে ২০১৯ বিশ্বকাপে অবশ্যই দেখা যাবে ‘এম এস’-কে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *