জীবনের কঠিন পরিস্থিতিতেও ঠান্ডা মাথায় দায়িত্ব পালন করলেন মাহি, বাঁচালেন সতীর্থদের 1
শান্ত থাকতে বলে ক্রিকেটারদের বাঁচালেন ধোনি

টানটান উত্তেজনার ম্যাচে কোণঠাসা ভারত। জেতার হয়ত আর কোনও আশাই নেই। অথচ অধিনায়কের কপালে তখনও কোনও চিন্তার ছাপ নেই। এই সময় কোনও নতুন দর্শক সেই অধিনায়ককে মীরজাফররের সঙ্গে তুলনা করলে হয়ত ভুল করবেন না। কিন্তু প্রায় হেরে যাওয়া সেই ম্যাচ, ঠান্ডা মাথায় প্রতিপক্ষে মুখের ভিতরে থাবা বসিয়ে যদি কেউ টেনে আনে, তাকেই হয়ত বলে মহেন্দ্র সিংহ ধোনি। ক্যাপ্টেন কুল বলে এই কারণেই পরিচিত তিনি।

২০১৬ টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভারত বনাম বাংলাদেশের ম্যাচের কথা হয়ত সকলেরই মনে আছে। প্রায় হেরে যাওয়া ম্যাচে আশা ছেড়ে দিয়েছিলেন খোদ ভারতীয় দলের ক্রিকেটাররা। কিন্তু ধোনি তখনও ছিলেন নিশ্চুপ ভাবে কর্তব্যে অবিচল। অবশেষে নাটকীয়ভাবে শেষ বলে জয় আসে ভারতের। কঠিন পরিস্থিতিতে, মাথা ঠান্ডা রেখে তার মোকাবিলা করাই ক্যাপ্টেন কুলের ধর্ম। এবার মাঠের বাইরেও ঠান্ডা মাথায় বিচক্ষণতার পরিচয় দিলেন তিনি।

ভগবানের পা ছুঁতে লঙ্ঘণ করল কড়া নিরাপত্তা, ধোনির আশিষ নিয়েই ছাড়ল মাঠ

বিজয় হাজারে ট্রফির সেমিফাইনাল খেলতে ঝাড়খন্ড দল এখন দিল্লিতে। দিল্লির দ্বারকা এলাকার যে হোটেলে ধোনিরা ছিলেন সেখানে শুক্রবার ভোরবেলা আগুন লাগে। কালো ধোঁয়ায় যখন হাঁফিয়ে উঠছিলেন অন্যান্য ক্রিকেটাররা। কী করছিলেন ধোনি তখন? সেই কথাই ফাঁস করলেন ঝাড়খন্ডের ক্রিকেটার ঈশান কিশান। ভারতীয় এক সংবাদপত্রকে ঈশান বলেন, “আমারা কেউই রুম থেকে বেরোতে পারছিলাম না। ধোঁয়ায় নিঃশ্বাস নিতে কষ্ট হচ্ছিল। ধোনি ভাইও নিজের রুম থেকে বেরোতে পারছিলেন না। কিন্তু তিনি প্রতিটা ক্রিকেটারকে সেই সময় মেসেজ করে শান্ত থাকতে বলছিলেন। কিছুক্ষণ পরে হোটেল কর্তৃপক্ষ এসে আমাদের উদ্ধার করে নিয়ে যায়।”

খেলার মাঠের মত এটি নিছকই খেলা ছিল না, এই ঘটনায় জীবনও যেতে পারত। কিন্তু এরকম কঠিন পরিস্থিতিতেও মাথা ঠান্ডা রেখে বিচক্ষণতার পরিচয় দিয়েছে মাহি। তিনি অভিভাবকের মত সকলকে সামলেছেন। ধোনিরা সুস্থভাবে বাইরে বেরিয়ে এলেও, তাঁদের ক্রিকেটের সাজসরঞ্জাম বের করে আনা যায়নি। সেগুলির বেশিভাগটাই পুড়ে গিয়েছে। তাই এদিনের ম্যাচ শনিবার অনুষ্ঠিত হবে।

ভয়াবহ দুর্ঘটনার হাত থেকে বাঁচল ধোনি, সেমিফাইনাল স্থগিত করল বিসিসিআই

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *