কে হচ্ছেন ধোনী দ্যা ফিনিশারের বিকল্প? মিলে গেল কোহলীর ভবিষ্যৎ বাণী 1

কে হচ্ছেন ধোনী দ্যা ফিনিশারের বিকল্প? মিলে গেল কোহলীর ভবিষ্যৎ বাণী 2

মহেন্দ্র সিং ধোনীর ক্রিকেট দুনিয়ায় আগমনের পর হতে ক্রিকেট দুনিয়ার সেরা ফিনিশার হিসেবে নিজের জায়গা করে নিয়েছিলেন। ঝাড়খণ্ডের রাচিতে জন্মগ্রহণকারী মহেন্দ্র সিং ধোনি ২৩ ডিসেম্বর ২০০৪ বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ওয়ানডে অভিষেকের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট আসেন। এরপর ২ ডিসেম্বর ২০০৫ শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে টেষ্ট অভিষেক হয়। ডিসেম্বর ২০১৪ তে টেস্ট থেকে অবসর নেওয়ার আগে ৯০ টেস্টে ৪,৮৭৬ রান করেছে ৩৮.০৯ গড়ে। খেলে চলছেন এখনো ওয়ানডে ক্রিকেট। ফিনিশার হিসেবে যেমন সেরা তেমন অধিনায়ক যতদিন ছিলেন সেখানেও ছিলেন সেরা, মহেন্দ্র সিং ধোনির অধিনায়কত্বে ভারত ২০০৭ আইসিসি বিশ্ব টুয়েন্টি২০ , ২০০৭-০৮ সালের সিবি সিরিজ, ২০০৮ সালের বর্ডার-গাভাস্কার ট্রফি, ২০১০ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ২-০ ব্যবধানে একটি সিরিজ ও ২০১১ ক্রিকেট বিশ্বকাপ জয় করেছে। তার অধিনায়কত্বেই ভারত টেস্টের র্যাঙ্কিংয়ে এক নম্বরে উঠে এসেছিল। এখনও পর্যন্ত টেস্ট এবং ওয়ান-ডে ইন্টারন্যাশনালে তার রেকর্ড ভারতীয় অধিনায়কদের মধ্যে সেরা।
কে হচ্ছেন ধোনী দ্যা ফিনিশারের বিকল্প? মিলে গেল কোহলীর ভবিষ্যৎ বাণী 3 কে হচ্ছেন ধোনী দ্যা ফিনিশারের বিকল্প? মিলে গেল কোহলীর ভবিষ্যৎ বাণী 4 কে হচ্ছেন ধোনী দ্যা ফিনিশারের বিকল্প? মিলে গেল কোহলীর ভবিষ্যৎ বাণী 5 কে হচ্ছেন ধোনী দ্যা ফিনিশারের বিকল্প? মিলে গেল কোহলীর ভবিষ্যৎ বাণী 6 কে হচ্ছেন ধোনী দ্যা ফিনিশারের বিকল্প? মিলে গেল কোহলীর ভবিষ্যৎ বাণী 7

তিনি ২০১৩ সালে ইংল্যান্ড এ অনুষ্ঠিত আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি জয় করেন ,সেই সাথে বিশ্বের প্রথম অধিনায়ক যিনি আইসিসি র সব টুর্নামেন্ট জয় করার কৃতিত্ব রয়েছে। তার নেতৃত্বে ভারতীয় দল প্রথম শ্রীলঙ্কা ও নিউজিল্যান্ডের মাটিতে ওয়ানডে ইন্টারন্যাশনাল সিরিজ জয় করেছে এবং ভারত কুড়ি বছর পর অস্ট্রেলিয়াকে টেস্টে হারাতে সক্ষম হয়েছে। ধোনি একাধিক সম্মান ও পুরস্কার পেয়েছেন। তিনি ২০০৮ ও ২০০৯ সালে আইসিসি একদিনের ক্রিকেটের বর্ষসেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার পান। তিনিই প্রথম ভারতীয় যিনি এই পুরস্কার পেয়েছেন। এছাড়া তিনি ভারতের সর্বোচ্চ ক্রীড়া সম্মান রাজীব গান্ধী খেলরত্ন ও দেশের চতুর্থ সর্বোচ্চ অসামরিক সম্মান পদ্মশ্রী পেয়েছেন। একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট রেটিংয়ে জানুয়ারী ২০১০ সালে ধোনি সর্বোচ্চ র্যাঙ্কিংধারী খেলোয়াড়ের অধিকারী ছিলেন। ২০০৯ সালে ক্রিকেটের বাইবেল নামে পরিচিত উইজডেনের স্বপ্নের টেস্ট একাদশ দলের অধিনায়ক হিসেবে ঘোষিত হন।

এত সব রেকর্ডধারী মহেন্দ্র সিং ধোনী ২০১৪ সালের ডিসেম্বরে টেস্ট থেকে অবসর নিলে তাঁর জায়গায় টেস্ট ক্রিকেটে উইকেটের পিছনে দাঁড়াচ্ছেন বাংলার উইকেটকিপার ঋদ্ধিমান সাহা। তিনিও ভালই পারফরম্যান্স করছেন ভারতের হয়ে। ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহলীর একজন ক্রিকেটার উপর ভরসা করা বা ধোনীর বিকল্প ভাবা কথা শুনলে অনেকেই মনে করতে পারেন ঋদ্ধিমান সাহার কথাই হয়তো বলা হচ্ছে কিন্তু তা নয়। কোহলি আসলে হার্দিক পান্ডার উপরেই ভরসা রেখেছিলেন। পান্ডা অলরাউন্ডার। প্রয়োজনের সময়ে হাত ঘুরিয়ে উইকেট তুলে নিতে পারেন। আবার দলের প্রয়োজনে ব্যাটও পারেন। আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির ফাইনালে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে মারমুখী ব্যাট করেছিলেন। শ্রীলঙ্কাতেও পান্ডা সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন। দ্বীপরাষ্ট্রের মাটিতেও ঝড় তুলেছেন পান্ডা। ৮৬ বলে শতরান করেন। হার্দিক পান্ডিয়ার প্রশংসা করে কোহলী বলেছিলেন এই মুহুর্তে হার্ডিক পান্ডিয়া অলরাউন্ডার হিসেবে খেলার জন্য সেরা অবস্থায় আছেন। এমনকি তিনি হার্দিক পান্ডিয়া কে তিনি তুলনা করেন বেন স্ট্রোকের সাথেও। তাই হার্দিক পান্ডিয়ার ফিনিশিং এই ভরসা রাখছেন ভারতে দলপতি।

Nazmus Sajid

Sports Fanatic!

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *