বাংলাদেশ বনাম অস্ট্রেলিয়া : আহত হয়ে মাঠ ছাড়লেন ডেভিড ওয়ার্নার 1

বাংলাদেশ বনাম অস্ট্রেলিয়া : আহত হয়ে মাঠ ছাড়লেন ডেভিড ওয়ার্নার 2

বাংলাদেশ সফর কে সামনে রেখে ডারউইনে চলমান প্রস্তুতি ম্যাচে জোস হ্যাজেলউডের বাউন্সারে আঘাত পেয়ে মাঠ ছেড়েন অস্ট্রিয়ান ওপেনার ও সহ অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নার। হ্যাজেলউডের বলে হুক করতে গিয়ে আহত হন তিনি। হ্যাজেলউডের বাউন্সার হ্যামলেটে লেগে তিনি যখন হাটু গেরে বসে পড়েন তখন প্রতিপক্ষ একাদশের অধিনায়ক স্টিভ স্মিথ ছুটে তার সাহায্যের জন্য ছুটে আসেন এবং ত্রিশ বছর বয়স্ক এ বাম হাতি ব্যাটসম্যান দ্রুত মাঠ ত্যাগ করেন। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া এক টুইট বার্তায় ব্যাপারটি নিশ্চিত করেছে।

জোস হ্যাজেলউড বল করছিলেন রাউন্ড দা উইকেটে। ঠুকে দিলেন একটি বাউন্সার। হুক করতে গিয়ে ডেভিড ওয়ার্নার করলেন গড়বড়। বল সোজা লাগল ওয়ার্নারের ঘাড়ের এক পাশে! আঘাতে তাল সামলাতে না পেরে পড়ে যান ওয়ার্নার। ডারউইনে অস্ট্রেলিয়ার প্রস্তুতি ক্যাম্পে নিজেদের ভেতর প্রস্তুতি ম্যাচের দ্বিতীয় দিনের ঘটনা এটি। অস্ট্রেলিয়ার টিম ডক্টর রিচার্ড স মাঠে ছুটে আসেন দ্রুতই। তবে ওয়ার্নার মাঠ ছাড়তে পারেন একাই। ড্রেসিং রুমে ফেরার পর তাকে দেওয়া হয় প্রাথমিক চিকিৎসা। প্রাথমিকভাবে চোট গুরুতর নয় বলেই ধারণা করা হচ্ছে। আগের দিন প্রথম ইনিংসে ৪ রান করে এই হ্যাজেলউডের বলেই বোল্ড হয়েছিলেন ওয়ার্নার। দ্বিতীয় ইনিংসে মাঠ ছাড়ার সময়ও ওয়ার্নারের রান ছিল ২।

২০১৪ সালের ২৫ নভেম্বর শেফিল্ড শিল্ডের ম্যাচে ঘাড়ে আঘাত পেয়েছিলেন অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটসম্যান ফিল হিউজ। সিডনির সেই ঘটনার পর সরাসরি হাসপাতালে নিলেও বাঁচানো যায়নি হিউজকে। সেই থেকে ব্যাটসম্যানদের এ ধরনের ইনজুরি আতঙ্ক ছড়ায়। ওয়ার্নারের ইনজুরিতে স্মিথের ছুটে আসাতেই বোঝা যায় মর্মান্তিক সেই দুর্ঘটনা এখনো তাড়া করে অস্ট্রেলিয়া দলকে। অস্ট্রেলিয়ার ১৩২ বছরের ক্রিকেট ইতিহাসে ডেভিড ওয়ার্নার হচ্ছেন প্রথম ক্রিকেটার যিনি প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট খেলার কোনরূপ পূর্ণ অভিজ্ঞতা ছাড়াই জাতীয় ক্রিকেট দলে খেলার সুযোগ পেয়েছেন। ডারউইনে অনুশীলন ক্যাম্প চলবে ১৭ আগস্ট পর্যন্ত। দুদিন পরই বাংলাদেশে আসছে অজিরা। অস্ট্রেলিয়া দল বাংলাদেশে আসবে ১৮ আগস্ট। সফরে দুই দিনের একটি প্রস্তুতি ম্যাচ ও দুটি টেস্ট ম্যাচ খেলবেন স্মিথ-ওয়ার্নাররা।

ডেভিড ওয়ার্নারের নিজের দেশে পারফরম্যান্স আর উপমহাদেশে পারফরম্যান্সের মধ্যে রয়েছে আকাশ পাতাল তফাৎ। অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে ওয়ার্নারের গড় যেখানে ৬০.১১, উপমহাদেশে তা মাত্র ৩০.৩৮। উপমহাদেশের উইকেটে যে ওয়ার্নারের চেনা রূপ খুঁজে পাওয়া যায় না তা স্পষ্ট এ পরিসংখ্যানেই। অস্ট্রেলিয়ার কোচ ড্যারেন লেম্যানের আশা উপমহাদেশে এমন বাজে ফর্ম কাটিয়ে উঠবেন ওয়ার্নার। ফেব্রুয়ারি-মার্চে ভারতের মাটিতে সর্বশেষ টেস্ট সিরিজে তাঁর সর্বোচ্চ ইনিংস ৫৬, যেটি আবার ধর্মশালায় সিরিজ–নির্ধারণী টেস্টে। এশিয়ায় রান না পাওয়া এই ওপেনারের ওপর তবুও আস্থা রাখছেন অস্ট্রেলিয়া কোচ ড্যারেন লেম্যান, ‘আমার মনে হয়, সে কী করতে পারে বা পারে না, তা ভালো বুঝতে পেরেছে। আমি আশাবাদী, এশিয়ায় সে আরও ভালো করবে।’ প্রথম ইনিংসে বড় রান গড়ার ওপর গুরুত্ব দিচ্ছেন লেম্যান। উপমহাদেশে গত দশকে যে একটি টেস্ট জিতেছে অস্ট্রেলিয়া (ভারতের বিপক্ষে), সেটি মরা উইকেটে প্রথম ইনিংসে ৪৫০-এর বেশি রান করে। বাংলাদেশে একই উইকেট থাকতে পারে —এ ধারণায় লেম্যান মনে করছেন, প্রথম ইনিংসে বড় স্কোরের বিকল্প নেই।

Nazmus Sajid

Sports Fanatic!

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *