স্বামী পাচ্ছেন না যোগ্য সম্মান, ফেলে আসা স্বর্ণযুগই মনে পড়ছে সাক্ষীর 1
সাক্ষী সিংহ ধোনি

২০০৭ সালে প্রথম টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভারতের জয়। সেই জয়ের অন্যতম রূপকার ভারতীয় টি টোয়েন্টি দলের অধিনায়ক মহেন্দ্র সিংহ ধোনি। এই বিশ্বকাপ জয়ের সঙ্গে সঙ্গেই শুরু হয় ক্রিকেটের ইতিহাসে ধোনি যুগ। টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জেতার পর ভারতে টি টোয়েন্টি ক্রিকেটের প্রতি এক ঐতিহাসিক ঝোঁক লক্ষ্য করেই বিসিসিআই আইপিএলের প্রতিষ্ঠা করেন। ধোনির নেতৃ্ত্বে পথচলা শুরু করে চেন্নাই সুপার কিংস। মানুষের ভালবাসায় রাঁচির পরে চেন্নাইও ধোনির অন্যতম ঘর হয়ে ওঠে। চেন্নাইবাসীর ভালবাসার জন্য সিএসকের সঙ্গে মাহির স্ত্রী সাক্ষী ধোনি যেভাবে মিশে গিয়েছিলেন, তার অভাব আজও বোধ করেন তিনি।

সম্প্রতি একটি স্যোশাল নেটওয়ার্কিং সাইটে চেন্নাই সুপার কিংসের জার্সি ও হেলমেট পড়া এক ছবি দিয়ে সাক্ষী লেখেন ‘থ্রোব্যাক’।

#throwback !!

A post shared by Sakshi (@sakshisingh_r) on

এর মধ্যে দিয়েই বোঝা যায় সিএসকের জন্য তাঁর ভালবাসা কতটা গভীর। দুর্নীতির অভিযোগে চেন্নাই সুপার কিংস ও রাজস্থান রয়্যালসকে বিসিসিআই দু’বছরের জন্য নির্বাসিত করেছিল আইপিএল থেকে। এরপরই ধোনির জায়গা হয় রাইসিং পুনে সুপারজায়ান্টসে। কিন্তু এই দলে যোগ্য সম্মান তিনি পাননি। এবছরের প্রথম দিকেই কিছু না জানিয়ে, পুনের কর্মকর্তারা বিশ্বকাপ জয়ী এই অধিনায়ককে, অধিনায়কের পদ থেকে সরিয়ে দেয়। তাও ধোনি দলে একজন অভিজ্ঞ ক্রিকেটার হিসেবে থেকে গিয়েছেন। কিন্তু এর পরও তাঁকে আক্রমণ করতে ছাড়েন নি, পুনের এই ফ্রাঞ্চাইজিরই কর্ণধারের ভাই। ক্রমাগত টুইটে ধোনির ফর্ম নিয়ে নাম না করে একের পর এক খোঁচা দিয়ে গিয়েছেন। এই সমস্ত দেখেই হয়ত সাক্ষী সিএসকের স্বর্ণযুগের কথা মনে পড়ছে।

চেন্নাইয়ের এই ফ্রাঞ্চাইজির সঙ্গে ধোনির গাঁটছড়া এখনও আইপিএলে শ্রেষ্ঠ। নিজের নিপুণ নেতৃ্ত্বে চেন্নাইয়ের এই ফ্রাঞ্চাইজিকে ছ’বার ফাইনালে নিয়ে গিয়েছেন মাহি। ২০১০ ও ২০১১ সালে পর পর দুবার চ্যাম্পিয়ন করেছেন। স্বামীকে যোগ্য উৎসাহ দানের জন্য তখন প্রায় প্রতিটা ম্যাচেই মাহি জায়ার উজ্জ্বল উপস্থিতি লক্ষ্য করা যেত। সেই দিনগুলিই হয়ত খুব মিস করছেন মিসেস ধোনি। যদিও আর মাত্র একটা বছরের অপেক্ষা। কারণ, পরের মরশুমেই নির্বাসন কাটিয়ে আইপিএলে ফিরবে চেন্নাই সুপার কিংস। তবে এবারে সিএসকেতে অধিনায়ক হয়ে ধোনি থাকেন কী না সেটাই বড় প্রশ্ন।

A post shared by Sakshi (@sakshisingh_r) on

 

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *