ধোনির ক্যাচ ছেড়ে দিয়ে চাপে পড়েছিল বাংলা, কীভাবে সামলে উঠল এই ক্ষতি? 1
মনোজ তিওয়ারি

গত শনিবারই বিজয় হাজারে ট্রফির সেমিফাইনালে ঝাড়খন্ডের কাছ থেকে ফাইনালে যাওয়ার টিকিট ছিনিয়ে নিয়েছে বাংলা। টানটান উত্তেজনার ম্যাচে জয় আসাটা সহজ ছিল না। ঝাড়খন্ড গোটা টুর্নামেন্টেই বেশ কঠিন প্রতিপক্ষ হিসেবে নিজেদেরকে তৈরি করেছিল। তাছাড়াও যে দলের অধিনায়ক খোদ ভারতীয় জাতীয় দলের সফলতম অধিনায়ক, তাঁর দলের বিরুদ্ধে জেতাটা সহজ ছিলনা একদমই। বিশেষ করে অশোক দিন্দা ধোনির ক্যাচ ছাড়ার পর চিন্তার ভাঁজ পড়েছিল বাংলার অধিনায়ক মনোজ তিওয়ারির।

বিশ্বকাপ ফাইনালের স্মৃতি উসকে ঝাড়খন্ডকে সেমিফাইনালে নিয়ে গেল ধোনি

প্রথমে ব্যাট করতে নেমে বাংলা বিরাট রানের লক্ষ্যমাত্রা দেয় ঝাড়খন্ডের সামনে। জবাবে ব্যাট করতে নেমে খুব একটা ভাল শুরু করতে পারেনি ঝাড়খন্ড। কিন্তু মহেন্দ্র সিংহ ধোনর কারণেই বাংলা চিন্তিত ছিল। সেই ধোনির ক্যাচ ছেড়েই একটা সময় বাংলার চিন্তা বাড়িয়েছিল দিন্দা। মাঠে নেমে বেশ ভালই শুরু করেছিল ধোনি। তারপর মাত্র ছ’রান করেই হঠাৎ লঙ অফে ক্যাচ তুলে বসে। সেখানে দাঁড়িয়ে থাকা অশোক দিন্দা ক্যাচ ছেড়ে দেয়। ঠিক কী হাল হয়েছিল মনোজ তিওয়ারির সেইসময়? মনোজ বলেন, “পুরোপুরি না হলেও একটু চিন্তায় ছিলাম। ওই ক্যাচ ছাড়ার পর আমি দলের সবার সঙ্গে কথা বলি এরকম ভুল না হওয়ার জন্য। ক্যাচ ছাড়লে ম্যাচও ছাড়তে হয়, কথায় আছে।”

২০১২ সালে দিল্লির ফিরোজ শাহ কোটলায় মুম্বইকে হারিয়ে বিজয় হাজারেতে প্রথমবারের জন্য চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল বাংলা। সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের দেখানো রাস্তায় হেঁটেই সেই জয় এসেছিল। এবারও জিতলে কী সেই জয় উৎস্বর্গ করা হবে মহারাজকে? মনোজ বলেন, “অবশ্যই তাই। সেই সময় সৌরভের নেতৃত্বেই আমরা জিতেছিলাম। এবারও সেই একই রকম করতে চাই।”

ঝাড়খন্ডের সঙ্গে জেতাটা সহজ ছিল না। তবে সেখান থেকে জয় ছিনিয়ে এনেছে মনোজরা। এবার ফাইনালে আরও কঠিন প্রতিপক্ষ তামিলনাডু। কী করবেন মনোজরা? বাংলার অধিনায়ক বলেন, “তামিলনাডু খুব ভাল দল। এই ধরনের পিচে ওদের খেলার অভিজ্ঞতাও আছে। তা ওরা খুব সঠিকভাবে কাজে লাগাবে। কিন্তু আমরাও শেষ ম্যাচে দুর্দান্ত জয় পেয়ে, আবার চ্যাম্পিয়ন হওয়ার জন্য বেশ আশাবাদী।”

সবশেষে হাল্কা মেজাজে মনোজকে লক্ষী রতন শুক্লর বিষয়ে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি মজা করে বলন, ‘ও এখন মন্ত্রী হয়ে গিয়েছে। আমার ডাক কি ওর কাছে আর পৌঁছবে।’

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *