অবসর ঘোষণার পরই আইসিসিকে একহাত নিয়ে আন্তর্জাতিক বোলাদের নিয়ে বিস্ময়কর দাবী করলেন আজমল 1

 

প্রাক্তণ পাকিস্তানী অফ স্পিনার সইদ আজমল যিনি সমস্ত ধরনের ক্রিকেট থেকে সন্ন্যাস নিলেন দেরীতে হলেও সম্প্রতি এক হাত নিয়েছেন ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিলকে এক হাত নিয়েছেন। আজমল আইসিসির বোলিং অ্যাকশনের পরীক্ষার মুল্যায়নের প্রটোকল নিয়ে প্রশ্ন তুলে আন্তর্জাতিক বোলারদের সম্পর্কে একটি বিস্ময়কর দাবী করেছেন। প্রসঙ্গত আজমলের বোলিং অ্যাকশন নিয়েও দু’বার প্রশ্ন উঠেছে। প্রথমবার তার বোলিং অ্যাকশন নিয়ে প্রশ্ন ওঠে ইউএইতে ২০০৯ এ অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে, আর দ্বিতীয়বার ইউএইতেই শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে ২০১৪ সালে। আজমল আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বিস্ময়ের সৃষ্টি করেছিলেন তার দুদিকেই বল টার্ন করানোর সক্ষমতা দিয়ে। যাহোক আজমলের উপর লাইম লাইট তখন সরে যায় যখন তিনি চাকিংয়ের অপরাধে ব্যান হন।

অবসর ঘোষণার পরই আইসিসিকে একহাত নিয়ে আন্তর্জাতিক বোলাদের নিয়ে বিস্ময়কর দাবী করলেন আজমল 2

এরপর ২০১৫য় তার বোলিং অ্যাকশন শুধরে নিয়ে খেলায় ফিরে এলেও আগের মত সাফল্য আর তিনি পান নি। সন্ন্যাস ঘোষণা করার পর আজমল জানিয়েছেন, “আমি আজকে অবসর নিয়েছি, এবং এখন আমার বয়েস ৪০। আমার মনে হয়েছে এটাই সঠিক সময়, নতুন্দের জন্য জায়গা ছেড়ে দেওয়ার। আমার মনে হয়েছে আমাকে দলের জন্য একটা বাড়তি বোঝা হিসেবেই দেখা হচ্ছে, এমনকী ঘরোয়া ক্রিকেটেও। কিন্তু আমি আমার সম্মান খুইয়ে দলের বাইরে যেতে চাই না”। যা হোক আজমল আইসিসির বোলারদের বোলিং অ্যাকশন পরীক্ষা নিয়ে প্রশ্ন তুলে বলেছেন যে যদি বর্তমান বোলারদের বোলিং অ্যাকশন পরীক্ষা করা হয় তাহলে দেখা যাবে ৯০ শতাংশ বোলারই সেই পরীক্ষায় অসফল হবে। তিনি বলেন, “ আমি ভীষণই ভারী হৃদয়ের সঙ্গে অবসর নিচ্ছি। প্রথমত আমার মনে হয় যে আইসিসির প্রটোকল ভীষণই শক্ত, এবং যদি সমস্ত বোলার যারা এই মুহুর্তে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলছে তাদের পরীক্ষা করা হয় তাহলে আমি নিশ্চিত যে ৯০ শতাংশ বোলারই এই প্রটোকল পাস করতে ব্যর্থ হবেন”। আইসিসি প্রটোকল সমস্যা নিয়ে কথা বলতে গিয়ে দাবী করেছেন যে কিছু বোলারদের হাতের স্বাভাবিক মেডিকেল সমস্যার কথা বিবেচনা করা হয়নি যখন কয়েকজনে অ্যাক্সিডেন্টের পর হাতের সমস্যা দেখা দিতে পারে।

অবসর ঘোষণার পরই আইসিসিকে একহাত নিয়ে আন্তর্জাতিক বোলাদের নিয়ে বিস্ময়কর দাবী করলেন আজমল 3

আজমল সবসময়েই দাবী করেছেন যে একটি পথ দুর্ঘটনাই দায়ী তার হাত কিছু অতিরিক্ত বাকানোর জন্য। আজমল ভারী হৃদয়ের সঙ্গে সন্ন্যাস নিয়েছেন এবং তিনি সবসময়েই খেলাটার সঙ্গে যুক্ত থাকতে চেয়ে নতুনদের কোচিং করাতে চান। আজমল জানিয়েছেন, “আমি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের চ্যালেঞ্জটাকে সবসময়েই উপভোগ করেছি। এটাই পাকিস্থানের হয়ে ম্যাচ খেলে অবসর নেওয়ার আদর্শ সময়”।

suvendu debnath

কবি, সাংবাদিক এবং গদ্যকার। শচীন তেন্ডুলকর, ব্রায়ান লারার অন্ধ ভক্ত। ক্রিকেটের...

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *