প্লে অফ থেকে ছিটকে গিয়ে ক্ষুব্ধ রাহানে নেতৃত্ব কেড়ে নেওয়া নিয়ে বললেন এই কথা

রাজস্থান রয়্যালস দল নিজেদের শেষ লীগ ম্যাচে দিল্লি ক্যাপিটালসের কাছে ৫ উইকেটে হেরে গিয়েছে। রাজস্থান রয়্যালসের এই হারে তাদের আইপিএল ২০১৯ এর অভিযান শেষ হয়ে গিয়েছে। প্রথমে ব্যাট করে রাজস্থানের দল মাত্র ১১৫ রানই করতে পারে। এই লক্ষ্য দিল্লির দল যথেষ্ট সহজেই হাসিল করে নেয়।

তরুণ খেলোয়াড়দের হারের দোষ দিতে পারি না

প্লে অফ থেকে ছিটকে গিয়ে ক্ষুব্ধ রাহানে নেতৃত্ব কেড়ে নেওয়া নিয়ে বললেন এই কথা 1

রাজস্থান রয়্যালসের অধিনায়ক অজিঙ্ক রাহানে নিজের পোষ্ট ম্যাচ প্রেজেন্টেশনে বলেন,

“আমাদের জন্য এই আইপিএল মরশুম একটা কঠিন মরশুম থেকেছে।আমরা এই মরশুমে কিছু গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্তের ফায়দা তুলতে পারিনি। আমার মনে হয় যে আজকের হারের জন্য ছেলেদের দোষ দেওয়া সঠিক নয়। কারণ ওদের মধ্যে বেশ কিছু খেলোয়াড় এই মরশুমে নিজের তৃতীয় বা চতুর্থ ম্যাচই খেলছিল। আমাদের এই মরশুম থেকে শেখার আর সামনের মরশুমে ভাল প্রত্যাবর্তন করার প্রয়োজন রয়েছে”।

পরাগ আর গোপাল আমাদের জন্য এই মরশুমের পজিটিভ দিক

প্লে অফ থেকে ছিটকে গিয়ে ক্ষুব্ধ রাহানে নেতৃত্ব কেড়ে নেওয়া নিয়ে বললেন এই কথা 2

রাজস্থান অধিনায়ক অজিঙ্ক রাহানে রিয়ান পরাগ আর শ্রেয়স গোপালের ব্যাপারে কথা বলতে গিয়ে বলেন,

“রিয়ান পরাগ এই মরশুমে অসাধারণ থেকেছে আর তার সঙ্গে শ্রেয়স গোপালও, এই মরশুমে এই দুই খেলোয়াড় আমাদের জন্য একটা বড়ো পজিটিভ দিক। শ্রেয়স গোপাল সবসময় উইকেট নেওয়ার ব্যাপারে ভাবে। অন্যদিকে রিয়ান পরাগও একজন প্রতিভাবান অলরাউন্ডার”।

১৪০-১৫০ রানের স্কোর হতে পারত চ্যালেঞ্জিং

প্লে অফ থেকে ছিটকে গিয়ে ক্ষুব্ধ রাহানে নেতৃত্ব কেড়ে নেওয়া নিয়ে বললেন এই কথা 3

রাহানে আগে নিজের বয়ানে আরো বলেন,

“আমরা ভালবাসা আর প্যাশন নিয়ে ম্যাচ খেলি আর এমন স্বভাব আমাদের সমস্ত খেলোয়াড়দেরই। আজ আমরা ভাল ব্যাটিং করিনি, এই পিচে ১৪০-১৫০ রানের স্কোর চ্যালেঞ্জিং হতে পারত।
যদিও তাও আমাদের বোলাররা ভাল চরিত্র দেখিয়েছে। ইস সোধী নিজের দ্বিতীয় ম্যাচেওই খেলছিল আর ও ভীষণই ভাল কাজ করেছে”।

অধিনায়কত্ব আর ব্যাটিং দুটোই যথেষ্ট আলাদা আলাদা ব্যাপার

প্লে অফ থেকে ছিটকে গিয়ে ক্ষুব্ধ রাহানে নেতৃত্ব কেড়ে নেওয়া নিয়ে বললেন এই কথা 4

অজিঙ্ক রাহানে নিজের নেতৃত্ব আর ব্যাটিং নিয়ে আগে নিজের বয়ানে বলেন,

“ব্যক্তিগতভাবে এই মরশুম আমার জন্য ভাল ছিল, আমি এই মরশুমে কিছু ম্যাচে ভাল ব্যাটিং করেছি।
যদিও নেতৃত্ব, আর ব্যাটিং দুটি যথেষ্ট আলাদা আলাদা ব্যাপার। আমি সবসময়ই নিজের ফ্রেঞ্চাইজিকে সর্বশ্রেষ্ঠ দিতে চাই। এই কারণে অধিনায়কত্ব আর ব্যাটিংয়ে পজিটিভ থাকা আর নিজের সর্বশ্রেষ্ঠ দেওয়া ব্যাপার আমার ধ্যান থাকে”।

suvendu debnath

কবি, সাংবাদিক এবং গদ্যকার। শচীন তেন্ডুলকর, ব্রায়ান লারার অন্ধ ভক্ত। ক্রিকেটের...

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *