করোনা ভাইরাসের পর এই ৫টি পরিবর্তনের সঙ্গে শুরু হতে পারে ক্রিকেট

বিশ্বব্যাপী মহামারী করোনা ভাইরাস পুরো বিশ্বকে নিজের আওতায় নিয়ে রেখেছে। আমেরিকা, রাশিয়া, ইটালি, ফ্রান্সের মতো বড়ো দেশও এই মহামারীর থেকে নিজেদের দেশবাসীর প্রাণ বাঁচাতে সফল হয়নি। অন্যদিকে ভারত-পাকিস্তানও এই মহামারীতে আক্রান্ত হয়েছে। করোনার কারণে গত আড়াই মাস ধরে ক্রিকেটের অনুষ্ঠানে বিরাম চলছে। কিন্তু এখন ধীরে ধীরে করোনা ভাইরাসের আতঙ্কের মধ্যে ক্রিকেটকে দ্বিতীয়বার শুরু করার প্রক্রিয়া শুরু করা হয়েছে। আসলে করোনা ভাইরাসের কারণে ক্রিকেট বন্ধের কারণে সমস্ত ক্রিকেট বোর্ডগুলিকে অত্যাধিক মাত্রায় লোকসানের মধ্যে দিয়ে যেতে হচ্ছে। এখন যখন ক্রিকেটকে আবারো শুরু করা হবে তো এই খেলায় আপনার অনেকগুলো পরিবর্তন দেখতে পাবেন। তো আসুন এই বিশেষ প্রতিবেদনে সেই ৫টি পরিবর্তনের ব্যাপারে জানানো যাক যা ক্রিকেট শুরু হওয়ার পর দেখা যেতে পারে।

১. হাত মেলানোর প্রথা হবে শেষ

করোনা ভাইরাসের পর এই ৫টি পরিবর্তনের সঙ্গে শুরু হতে পারে ক্রিকেট 1

ক্রিকেট ম্যাচে টসের পর দুই দলের অধিনায়ককে নিজেদের মধ্যে হাত মিলিয়ে একে অপরকে সম্মান জানাতে দেখা যায়। এছাড়াও ম্যাচ শেষ হওয়ার পর দুই দলের সমস্ত খেলোয়াড় এবং সাপোর্ট স্টাফেরা নিজেদের মধ্যে হাত মিলিয়ে একে অপরের আত্মিবিশ্বাস বাড়ান। কিন্তু যেমনটা আপনারা সকলেই এখন জেনে গিয়েছেন যে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের বিপদ সবচেয়ে বেশি হাত মেলানোয় হয়। হ্যাঁ, হাত মিলিয়ে কোনো সংক্রামিত ব্যক্তি সহজেই সামনের জনকে করোনা সংক্রমিত করতে পারেন। এই কারণে যখন থেকে করোনার ব্যাপারে বিশ্ব জানতে পেরেছেন তখন থেকেই সরকারগুলি নিজের নিজের দেশবাসীদের বাড়িতেই থাকার পরামর্শ দিচ্ছে। কিন্তু সেই সঙ্গে ডাক্তাররা আর গবেষকরাও এটা বলেছেন যদি আপনাকে কোনো জরুরী কাজে অন্য কারো সঙ্গে সাক্ষাত করতে হয় তো দয়া করে হাত মেলাবেন না। এই কারণে এটা বলা ভুল হবে না যদি ক্রিকেটের দরজা খিলে যায় তো হাত মেলানোর প্রথার উপর বিরাম লাগানো হবে। যাতে অজ্ঞাতে কেউই একে অপরকে সংক্রামিত করতে না পারেন।

২. বিদেশে সিরিজ শুরু হওয়ার এক মাস আগে পৌঁছবেন খেলোয়াড়রা

করোনা ভাইরাসের পর এই ৫টি পরিবর্তনের সঙ্গে শুরু হতে পারে ক্রিকেট 2

করোনা ভাইরাসের লক্ষ্মণ দেখা দিতে কম সে কম ১৪ দিন লেগে যায়। এই কারণে যখনই ক্রিকেট দ্বিতীয়বার শুরু হবে তো বিদেশ সফরের সময় ক্রিকেটারদের যথেষ্ট আগেই সেই দেশে পৌঁছতে হবে। উদাহরণের জন্য ওয়েস্টইন্ডিজের দলকে ৮ জুলাই থেকে ইংল্যান্ডে খেলতে হবে। এর জন্য ওয়েস্টইন্ডিজের দল ৯ জুন সেখানে রওনা হয়ে গিয়েছে। এখন সেখানে ১৪ইনের জন্য সমস্ত খেলোয়াড়দের কোয়ারেন্টাইন রাখা হবে। যাতে করোনা ভাইরসের বিপদ না থেকে যায়। এরপর দলের প্র্যাকটিস করার জন্যও পর্যাপ্ত সময় দেওয়া হবে। এখন এটা প্রথম উদাহরণ, কিন্তু পরবর্তী যে কোনো দলই যখন বিদেশ সফর করবে তো এই নিয়ম প্রত্যেকটি দলের উপরই বলবত হবে। এই কারণে একটি দলকে অনেক বেশি সময় নিয়ে বিদেশ সফরে যেতে হবে।

৩. এক সময় একটি দেশ খেলতে পারে বেশি ম্যাচ

করোনা ভাইরাসের পর এই ৫টি পরিবর্তনের সঙ্গে শুরু হতে পারে ক্রিকেট 3

করোনা ভাইরাসের কারণে গত ২ মাসের বেশি সময় ধরে ক্রিকেটের সমস্ত অনুষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। এই কারণে এখন ক্রিকেট যখন শুরু হবে তো তখন তার গতি দ্রুত করতে হবে। এখন প্রশ্ন ওঠে যে ক্রিকেটকে গতি কীভাবে দেওয়া যেতে পারে। এর জন্য যদি আইসিসি অনুমতি দেয় তো এক সময়ে একটি দেশের দল আলাদা আলাদা ফর্ম্যাটে একের বেশি ম্যাচ খেলতে পারে। আসলে গত প্রায় দীর্ঘ সময় ধরে ক্রিকেট বন্ধের কারণে সমস্ত ক্রিকেট বোর্ডকে ভারি লোকসানের মধ্যে দিয়ে যেতে হয়েছে। এখন যদি একটি দল এক সময়ে বেশি ম্যাচ খেলে তো সমর্থকরা রোমাঞ্চকর ম্যাচ দেখতে পারেন, আর সেই সঙ্গে বেশি খেলোয়াড়রা সুযোগ পেতে পারেন। বিসিসিআইয়ের এক আধিকারি এই বিষয়ে বিচার করে ভারতের একটি টেস্ট এবং টি-২০ দল গড়েছিলেন যারা একই সময়ে খেলতে পারে। এরপর বেশকিছু প্রাক্তন ক্রিকেটাররা ভারতের আলাদা আলাদা ফর্ম্যাটের প্লেয়িং ইলেভেন তৈরি করেছেন।

৪. সোশ্যাল ডিস্ট্যান্সিংয়ের কারণে বিনা দর্শকে হবে ম্যাচ

করোনা ভাইরাসের পর এই ৫টি পরিবর্তনের সঙ্গে শুরু হতে পারে ক্রিকেট 4

ক্রিকেট হবে আর সেখনে দর্শক থাকবে না, এটা ভাবা সামান্য কাল্পনিক মনে হয়। আসলে বিশ্বজুড়ে ক্রিকেট যথেষ্ট বেশি ভালোবাসা পায় আর সমর্থকদের হৃদয়ে এই খেলার প্রতি সম্মান আর প্যাশন পরিস্কার দেখতে পাওয়া যায়। কিন্তু যেমন করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন তৈরি হয়নি আর মাঠে খেলোয়াড়দের সুরক্ষাকে মাথায় রেখে বোর্ডগুলি বিনা দর্শকে ক্রিকেট ম্যাচ আয়োজিত করতে পারে। কারণ স্টেডিয়ামে আসা সমস্ত সমর্থকদের করোনা টেস্ট করা সম্ভব হবে না আর সেই সঙ্গে সুরক্ষা নিয়ে বোর্ডগুলি কোনো রিস্ক নিতে চাইবে না। জানিয়ে দিই যে বিসিসিআই আইপিএল ২০২০কে অনিশ্চিতকালের জন্য স্থগিত রেখেছে। কিন্তু বিসিসিআই লাগাতার এটার আয়োজন নিয়ে ভাবনা চিন্তা করছে। এখন যদি এই অবস্থায় আইপিএল ২০২০র আয়োজন হয় তো স্বাভাবিক যে ম্যাচ বন্ধ দরজার পেছনেই খেলা হবে।

৫. বাউন্ডারির কাছে থাকবে হ্যাণ্ড স্যানিটাইজার

করোনা ভাইরাসের পর এই ৫টি পরিবর্তনের সঙ্গে শুরু হতে পারে ক্রিকেট 5

ক্রিকেটের জন্য বিশ্বজুড়ে পাগলামী দেখতে পাওয়া যায়। ক্রিকেট ম্যাচ দেখতে হাজার হাজার সংখ্যক দর্শক উপস্থিত হন। এখন যেমনটা এটা প্রায় ঠিকই রয়েছে যে ক্রিকেট শুরু হওয়ার পর খালি স্টেডিয়ামে ম্যাচের আয়োজন করা হবে। কিন্তু এখন যখন মাঠে স্রেফ ক্রিকেটারদের এবং অ্যাম্পায়ারদেরই দেখা যাবে, তো তাদের স্যানিটাইজেশনের ব্যবস্থা স্টেডিয়ামেই করতে হবে। এর প্রধান কারণ হলো যখন ব্যাটসম্যান বলকে বড়ো শটের জন্য বাউন্ডারির বাইরে পাঠাবে আর ফিল্ডিং দলের খেলোয়াড় তা মাঠে ফেরত নিয়ে আসবে, তো সেই সময় করোনার বিপদ দেখা দিতে পারে। এই কারণে ম্যাচ শুরু হওয়ার আগে গ্রাউন্ডে এটা সুনিশ্চিত করা হবে যে খেলোয়াড়দের হ্যান্ড স্যানিটাইজেশনের জন্য বাউন্ডারির কাছে স্যানিটিজার রাখার। যাতে ফিন্ডিং দলের খেলোয়াড় মাঠে ফেরার সময় হাতকে পরিস্কার করে নেবেন আর করোনা থেকে বাঁচতে পারবেন।

suvendu debnath

কবি, সাংবাদিক এবং গদ্যকার। শচীন তেন্ডুলকর, ব্রায়ান লারার অন্ধ ভক্ত। ক্রিকেটের...

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *