ভারতীয় দলের এই ৫ খেলোয়াড়কে করা হয়েছে ফিক্সিংয়ের কারণে ব্যান

বিশ্ব ক্রিকেটে ম্যাচ ফিক্সিংয়ের অভিযোগ ওঠা যে কোনো খেলোয়াড়ের জন্য লজ্জাজনক ব্যাপার হবে। তা সে আপনি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলুন বা কোনো ফ্রেঞ্চাইজির প্রতিনিধিত্ব করুন, খেলোয়াড়ের দায়িত্ব থাকে যে তিনি পুরো সততার সঙ্গে ক্রিকেট খেলুন আর দলকে জয় এনে দিতে নিজের যোগদান দেবেন। কিন্তু বিশ্ব ক্রিকেটেই নন বরং ভারতেও এমন কিছু খেলোয়াড় রয়েছেন, যাদের উপর ম্যাচ ফিক্সিংয়ের অভিযোগ উঠেছে। শুধু তাই নয় বরং এটা বলাও ভুল হবে না যে এই অপরাধের কারণে তাদের ক্রিকেট কেরিয়ারের উপর গ্রহণ লেগে গিয়েছে। তো আসুন এই প্রতিবেদনে আপনাদের ভারতের সেই ৫জন খেলোয়াড়ের ব্যাপারে জানানো যাক, যাদে্র ম্যাচ ফিক্সিংয়ের কারণে ব্যান করা হয়েছে।

৫.মহম্মদ আজহারউদ্দিন

ভারতীয় দলের এই ৫ খেলোয়াড়কে করা হয়েছে ফিক্সিংয়ের কারণে ব্যান 1

ভারতীয় ক্রিকেট দলের প্রাক্তন অধিনায়ক মহম্মদ আজহারউদ্দিন ভারতের দুর্দান্ত অধিনায়কদের মধ্যে একজন থেকেছে। কিন্তু তার ক্রিকেট কেরিয়ারের উপর এমন এক স্পট ফিক্সিংয়ের দাগ লাগে যাকে তিনি যতই চান পরিস্কার করতে পারবে না। আজহারউদ্দিনই নন বরং এটা ভারতের জন্যও ভীষণই লজ্জার কথা যে দলের অধিনায়কের নাম ম্যাচ ফিক্সিংয়ে লিপ্ত পাওয়া গিয়েছে। স্টাইলিস এই ব্যাটশম্যানকে ১৯৯০ এ দলের অধিনায়কত্ব দেওয়া হয়েছিল। প্রাক্তন এই অধিনায়ক না শুধু ভালো খেলোয়াড় ছিলেন বরং তার অধিনায়কত্বে দল ভালো প্রদর্শনও করে।
কিন্তু তার কেরিয়ারের শেষটা ভীষণই নিরাশাজনক থেকেছে। ২০০০ এ আজহারউদ্দিনের উপর ম্যাচ ফিক্সিংয়ের অভিযোগ উঠেছিল, আর তাকে ব্যান করা হয়েছিল। কিন্তু ১২ বছর পর অন্ধ্রপ্রদেশ উচ্চ ন্যায়ালয় তার উপর লাগা ব্যান সরিয়ে দেয়। কিন্তু ব্যানের কারণে ক্রিকেট থেকে দূরে সরে যাওয়া আজহারউদ্দিন ২০০৯ এ রাজনীতিতে শামিল হয়ে যান। তিনি ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস পার্টি থেকে টিকিট পান আর তাকে মুরাদাবাদ নির্বাচনী এলাকা থেকে সাংসদ হিসেবে নির্বাচিত করা হয়। বর্তমানে প্রাক্তন এই অধিনায়ক হায়দ্রাবাদ ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতিপদে রয়েছেন।

৪. অজয় জাদেজা

ভারতীয় দলের এই ৫ খেলোয়াড়কে করা হয়েছে ফিক্সিংয়ের কারণে ব্যান 2

ভারতীয় ক্রিকেট দলের প্রকাতন ব্যাটসম্যান অজয় জাদেজাও এই তালিকায় শামিল রয়েছেন। জাদেজা ১৯৯২তে ভারতের হয়ে ডেবিউ করে দেশের হয়ে ১৫টি টেস্ট ম্যাচ আর ১৯৬টি একদিনের ম্যাচ খেলেছেন। অজয় জাদেজার ক্রিকেটের ক্ষেত্রে বড়ো উপলব্ধি রয়েছে। কিন্তু যখন তিনি ম্যাচ ফিক্সিং বিতর্কে শামিল হয়েছিলেন, তো তার সমস্ত কৃতিত্বই বেকার হয়ে যায়। ম্যাচ ফিক্সিংয়ের অভিযোগে বিসিসিআই দ্বারা তাকে ৫ বছরের জন্য ব্যান করা হয়েছিল। কিন্তু ২০০৩ এ দিল্লি হাই কোর্ট জাদেজার উপর লাগা ব্যান সরিয়ে দেয় আর তাকে ঘরোয়া আর আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলার অনুমতি দেওয়া হয়। ২ ফেব্রুয়ারি ২০০৩এ জাদেজা কে মাধবন কমিটির দ্বারা করা সুপারিশের আধারে বিসিসিআইয়ের আজীবন ব্যানের আদেশকে চ্যালেঞ্জ করেন। তাকে ২০১৫য় দিল্লির হয়ে একজন কোচের চাকরি অফারও করা হয়েছিল, কিন্তু তিনি এই ভূমিকা থেকে ইস্তফা দিয়ে দেন আর এখন জাদেজা ক্রিকবাজের হয়ে একজন জনপ্রিয় ক্রিকেট বিশেষজ্ঞ আর তিনি একজন কমেন্টেটর হিসেবেও কাজ করেন।

৩.মনোজ প্রভাকর

ভারতীয় দলের এই ৫ খেলোয়াড়কে করা হয়েছে ফিক্সিংয়ের কারণে ব্যান 3

মনোজ প্রভাকর ১৯৮৪ সালে ভারতের হয়ে ডেবিউ করেছিলেন। এরপর তিনি ৩৯টি টেস্ট এবং ১৩০টি একদিনের ম্যাচে ভারতের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করেছেন। যার মধ্যে ক্রমশ তিনি ৯৬টি আর ১৫৭টি উইকেট হাসিল করেন। প্রভাকরকে তার দুর্দান্ত প্রদর্শনের জন্য অর্জুন পুরস্কারেও সম্মানিত করা হয়েছিল। ১৯৯৬তে প্রভাকর নিজের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কেরিয়ারকে বিদায় জানান। কিন্তু তার আয় করা সমস্ত সম্মান ম্যাচ ফিক্সিংয়ের কারণে হারিয়ে ফেলেন। ২০০২এ টিম ইন্ডিয়ায় হওয়া ম্যাচ ফিক্সিং বিতর্কে বড়ো বড়ো নাম উঠেছিল। অধিনায়ক আজহারউদ্দিন, অজয় জাদেজার সঙ্গে সঙ্গে মনোজ প্রভাকর তৃতীয় খেলোয়াড় ছিলেন যাকে এই লজ্জাজনক কাজের জন্য ব্যান করা হয়েছিল। প্রাক্তন বাঁহাতি এই বোলারকে লাইফটাইম ব্যান করা হয়েছিল।

২.অজয় শর্মা

ভারতীয় দলের এই ৫ খেলোয়াড়কে করা হয়েছে ফিক্সিংয়ের কারণে ব্যান 4

ঘরোয়া ক্রিকেটে নাম করার পর অজয় শর্মাকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ১৯৮৮ সালে টেস্টে ডেবিউ করার সুযোগ দেওয়া হয়। অজয় শর্মা আন্তর্জাতিক স্তরে ১টি টেস্ট এবং ৩১টি একদিনের ম্যাচ খেলেছিলেন। যখন অজয় শর্মা আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ডেবিউ করেন তো তারপর প্রত্যেকের আশা ছিল যে তিনি দীর্ঘ সময় পর্যন্ত ভারতের প্রতিনিধিত্ব করবেন। তার প্রথম শ্রেনীর ক্রিকেটে দুর্দান্ত গড় ছিল। তিনি ৬৭ গড়ে ১০,০০০ এর বেশি রান করেছেন আর তার সবচেয়ে বেশি রান দিল্লির দলের হয়ে ছিল। কিন্তু তার দুর্দান্ত ফার্স্টক্লাস কেরিয়ার ২০০০ এ শেষ হয় যখন বিসিসিআই তাকে আজীবন ব্যান করে দেয়। পরে ২০১৪য় অজয় শর্মাকে দিল্লির উচ্চ ন্যায়ালয় ম্যাচ ফিক্সিংয়ের সমস্ত অভিযোগ থেকে মুক্ত করে দেয় আর আদালত বিসিসিআইকে বোর্ডের সমস্ত ক্রিকেট গতিবিধিতে অজয় শর্মাকে শামিল করার জন্য বলে।

১.এস শ্রীসন্থ

ভারতীয় দলের এই ৫ খেলোয়াড়কে করা হয়েছে ফিক্সিংয়ের কারণে ব্যান 5

ভারতে ম্যাচ ফিক্সিংয়ের কারণে যে খেলোয়াড়দের কেরিয়ার শেষ হয়ে গিয়েছিল, তাদের মধ্যে ভারতের জোরে বোলার এস শ্রীসন্থের নামও শামিল রয়েছে। ২০০৭ টি-২০ বিশ্বকাপ আর ২০১১ ওয়ানডে বিশ্বকাপ জয়ী দলের সদস্য থাকা শ্রীসন্থ ৭ বছরের দীর্ঘ ব্যান ভোগ করেন আর এখন তিনি ক্রিকেট মাঠে প্রত্যাবর্তনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন। যেভাবে টিম ইন্ডিয়ার ২০০০ সালের ম্যাচ ফিক্সিং বিতর্ক উঠেছিল তেমনই ২০১৩য় আইপিএলে বেশকিছু খেলোয়াড়ের উপর স্পট ফিক্সিংয়ের অভিযোগ উঠেছিল। সিএসকে আর রাজস্থান রয়্যালসকে ২ বছরের জন্য ব্যানও করে দেওয়া হয়েছিল। যদিও এই দুই ফ্রেঞ্চাইজি ২ বছর পর প্রত্যাবর্তন করেছে।
কিন্তু স্পট ফিক্সিংয়ে ফাঁসা শ্রীসন্থ ব্যান ভোগ করতে থাকেন। রাজস্থান রয়্যালসের শ্রীসন্থ এবং তার ২ সতীর্থ খেলোয়ড় অজিত চান্ডিলা আর অঙ্কিত চৌহানকে গ্রেপ্তার করা হয়। বিসিসিআই এরপর তিনজন খেলোয়াড়কেই লাইফটাইম ব্যান করে দেয়। যদিও শ্রীসন্থ নিয়মিত নিজের চেষ্টা করতে থাকেন আর তিনি প্রমাণ করে দিয়েছেন চেষ্টাকারীদের কখনও হার হয় না। নিয়মিত চেষ্টার পর ২০১৫য় বিশেষ আদালত তাকে অভিযোগ মুক্ত করে দিয়েছিল। এরপর ২০১৮য় কেরল হাইকোর্ট তার উপর লাগা আজীবন ব্যান শেষ করে দেন। শ্রীসন্থ ক্রিকেটের মাঠে নামার জন্য এলিজেবল হয়ে গিয়েছেন আর এখন তাকে এর জন্য বেশি অপেক্ষা করতে হবে না।

suvendu debnath

কবি, সাংবাদিক এবং গদ্যকার। শচীন তেন্ডুলকর, ব্রায়ান লারার অন্ধ ভক্ত। ক্রিকেটের...

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *