সৌরভের মতে পুনের পিচ কিউরেটরকে বরখাস্ত করলে সমস্য়ার সমাধান হবে না 1
সৌরভ গাঙ্গুলি

ইন্ডিয়া টুডের করা স্টিং অপারেশনে পুনে স্টেডিয়ামের পিচ কিউরেটর পান্ডুরঙ্গ সালগাঁওকরের ভিডিও ফুটেজটি দেখার পর তাঁর প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন ভারতের প্রাক্তন অধিনায়ক সৌরভ গাঙ্গুলি। ভারত-নিউজিল্য়ান্ড একদিনের আন্তর্জাতিক সিরিজের দ্বিতীয় ম্য়াচের কয়েক ঘণ্টা আগে ভিডিওটি প্রকাশ করে ইন্ডিয়া টুডে। আর তার পরেই চাঞ্চল্য় ছড়িয়ে পড়ে। ঘটনাটি দেখে সৌরভ নিজেও বেশ অবাক হয়েছেন।

ইন্ডিয়া টুডের ওই ফুটেজে দেখা যাচ্ছে, মহারাষ্ট্র ক্রিকেট অ্য়াসোসিয়েশেনের ওই স্টেডিয়ামের পিচ কিউরেটর সালগাঁওকর, বুধবার (২৫ অক্টোবর) ভারত-নিউজিল্য়ান্ড ম্য়াচ যে পিচে খেলা হবে, সেই পিচের চরিত্র বদলে দিতেও প্রস্তুত। মানে ব্য়াটে যাতে বল ঠিকমতো আসে তা, নিশ্চিত করতে পিচের বাউন্স, মুভমেন্ট এমনকী বল কতটা উঠবে, তা বুকি সেজে আসা সাংবাদিকদের ইচ্ছে মতো করে দিতে প্রস্তুত সে।

আইসিসি ও বিসিসিআইর নিয়ম-শৃঙ্খলাকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে যেভাবে পিচের চরিত্র বদলে দেওয়ার পাশাপাশি বুকির ছদ্দবেশে আসা সাংবাদিকদের পিচের কাছে নিয়ে গিয়েছে সালগাঁওকর তাতে আশ্চর্য ক্রীড়ামহল। প্রশ্ন উঠছে, আইসিসি ও বিসিসিআই এত কিছু করেও দুর্নীতি মুক্ত ম্য়াচ উপহার দিতে ব্য়র্থ। কারণ, আইসিসি ও বিসিসিআইয়ের নিয়ম অনুযায়ী, কোনও আন্তর্জাতিক ম্য়াচ অনুষ্ঠিত হতে চলার আগে ম্য়াচ অফিসিয়াল ছাড়া আর কোনও ব্য়ক্তি যে পিচে খেলা হবে তার ধারে কাছে যেতে পারে না। আর সে কথা, সালগাঁওকর পিচ দেখাতে দেখাতে ছদ্দবেশী সাংবাদিকদের সামনে নিজে মুখে স্বীকার করেছে। সে যে অপরাধ করছে, সে ব্য়াপারে নিশ্চিত। পিচ চোখে দেখানোতে থেমে না থেকে, তাঁদের পিচ ছুঁতেও দেয় সালগাঁওকর।

মহারাষ্ট্র ক্রিকেট অ্য়াসোসিয়েশনের সভাপতি অভয় আপ্তে ও বিসিসিআইয়ের যুগ্ম-সচিব অমিতাভ চৌধুরী সবাইকে আশ্বাস দিয়েছেন, এ ব্য়াপারে সংশ্লিষ্ট পিচ কিউরেটরকে কঠোর শাস্তির মুখে পড়তে হবে। ভারতীয় ক্রিকেটের নিয়ামক সংস্থার ক্রিকেট অ্য়াডভাইজরি কমিটির অন্য়তম সদস্য় ও বাংলা ক্রিকেটের নিয়ামক সংস্থার সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলি অত্য়ন্ত আশ্চর্য হয়ে বলেছেন, কাউকে পিচের কাছে আসা থাকে আদৌ আটকানো যাবে কি না, সে ব্য়াপারে তিনি নিশ্চিত নন।

ভারতের প্রাক্তন অধিনায়ক বলেন, আমিও স্টিং অপারেশনের খবরটা দেখছি। সালগাঁওকর ঠিক কি বলতে চাইছে, আমি জানি না। কাউকে পিচের কাছে যাওয়া থেকে রোখা যাবে কি না, আমি সে ব্য়াপারেও নিশ্চিত নয়। ভারতীয় ক্রিকেটে এটা একটা সমস্য়া। দাদা এরপর বলেন, সত্য়ি বলতে, এই মুহূর্তে আমি কিছু বলতে পারব না। বেশি কিছু বলারও নেই। কারণ, আমি বুঝতে পারছি না, ও ঠিক কি করতে চাইছিল! একদিন আগে ও কি করে পিচ বদলে দেবে বা বুকিদের পছন্দ মতো পিচের চরিত্র বদলে দেবে, আমি বুঝতে পারছি না। ও কি করতে চাইছিল, সে ব্য়াপারে আমাকে ঠিক মতো জানতে দিন আগে। তারপর এনিয়ে কিছু বলতে পারব।

এই ঘটনার পর বিসিসিআই ট্য়ুইট করে জানায়, ম্য়াচ অনুষ্ঠিত হবে, নাকি বাতিল করে দেওয়া হবে, তা ম্য়াচ রেফারি ঠিক করবেন। কিন্তু, সৌরভ ম্য়াচ বাতিল করার পক্ষপাতী একেবারেরই নন। তিনি বলেন, পান্ডুরঙ্গ সালগাওকর যদি কোনও ভুল করে থাকে, তাহলে তাকে শাস্তি দেওয়া হোক। কিন্তু, ক্রিকেট ম্য়াচকে রদ করা ঠিক নয়। কিউরেটরকে সরিয়ে দেওয়া হোক। কারণ, দিনের শেষে একটা কথা মাথায় রাখতে হবে, ক্রিকেটাররা তো কোনও দোষ করেনি। ম্য়াচ অফিসিয়ালরা কোনও ভুল কাজ করেনি। ফলে, ম্য়াচ খেলাতে কোনও সমস্য়া নেই। আমার তাই মনে হয়। দাদা আরও বলেন, সিকে খান্না বিসিসিআইয়ের (অস্থায়ী) সভাপতি। তিনি নিজের মতামত দিতেই পারেন। কোনট ভুল বা ঠিক বলতেই পারেন। কারণ, পরিস্থিতিকে হাতের বাইরে যেতে দিতে নেই। তবে, ব্য়ক্তিগতভাবে আমি ম্য়াচ করানোর পক্ষপাতী।

এরপর বোর্ডের নজরদারীর প্রসঙ্গ টেনে ভারতের এই প্রাক্তন বাঁহাতি ব্য়াটসম্য়ানটি বলেন, এরকম ঘটনা কতদিন ধরে চলে আসছে, তা জানি না। বোর্ড নজরদারি চালানোর জন্য় সবরকম ব্য়বস্থা করে রেখেছে। কিন্তু, একটা কথা মাথায় রাখতে হবে, একজনের ওপর নজর রাখার জন্য় পনেরোটা ক্য়ামেরা বসানো হলেও, যে অন্য়ায় কাজ করতে চায়, সে রাস্তা ঠিক বের করে নেবে চোখে ধুলো দেওয়ার জন্য়। যে দুর্নীতি দমন নিয়ে আইসিসি ও বিসিসিআই একযোগে কাজ করে। কোনও আন্তর্জাতিক ম্য়াচ আয়োজন হলে সবার দায়িত্ব থাকে। কোনও পদ্ধতিই একেবারে ত্রুটিমুক্ত হয় না। এদিক-ওদিক হওয়াটা স্বাভাবিক। পান্ডুরঙ্গ যা করছে, সেজন্য় বিসিসিআই ওকে বরাখাস্ত করলে সব ঠিক হয়ে যাবে, এটা ঠিক নয়। শুধুমাত্র একটা জায়গা পর্যন্ত গিয়ে সবকিছুকে নিয়ন্ত্রণ করা যায় না। এজন্য় তদন্ত করতে হবে। শেষ দেখে ছাড়তে হবে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *