সিরিজ শুরুর আগেই কিউয়ি অধিনায়কের মুখে হার্দিকের প্রশংসা 1

গত বছর নিউজিল্য়ান্ডের বিরুদ্ধেই একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হয় ভারতের তরুণ পেস বোলিং অলরাউন্ডার হার্দিক পান্ডিয়ার। জীবনের প্রথম সুযোগেই ম্য়ান অফ দ্য় ম্য়াচ-এর পুরস্কার ঝুলিতে পুরেছিলেন। বছর ঘুরতে আবার সেই নিউজিল্য়ান্ডের সঙ্গেই খেলা। মাঝের এই সময়টা ভারতীয় দলে সঙ্গে হার্দিক পান্ডিয়া অনেকটা রাস্তা পার করেছেন। তবে, কেরিয়ারের প্রথম ম্য়াচে যে প্রতিভার ঝলক তিনি দেখিয়েছিলেন, তার ধারাবাহিকতা রাখতে পারেননি এখনও পর্যন্ত। তবে, দলের প্রয়োজনে মাঝেমধ্য়েই বড় ভূমিকা নিচ্ছেন।

এবছরটা হার্দিকের জন্য় ভালোই কেটেছে বলা যায়। টেস্ট ক্রিকেটেও সুযোগ পেয়েছেন। সীমিত ওভারের ক্রিকেটে যা সুযোগ দেওয়া হচ্ছে, সেটাকে কাজে লাগানোর চেষ্টা করছেন। কমপ্লিট প্য়াকেজ হওয়ার চেষ্টা করছেন। পেস বোলিং অলরাউন্ডার হওয়ায় অধিনায়ক ও কোচ, তাঁর ওপর একটু বেশি সুনজর দিচ্ছেন।  তিন ধরনের ফরম্য়াটেই হার্দিককে দলে সম্পদ হয়ে ওঠার জন্য় পূর্ণ সমর্থন ও সময় দেওয়া হচ্ছে। আইপিএল ক্রিকেটে ব্য়াট হাতে মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের হয়ে সফল মরশুমের পর চ্য়াম্পিয়ন্স ট্রফির ফাইনালে চাপে ভরা পরিস্থিতিতে তাঁর করা ৪৩ বলে ৭৬ রান, সমালোচকদের প্রশংসা কুড়োয়। যদিও ভারত ম্য়াচটি পাকিস্তানের কাছে ১৮০ রানে হেরে যায়।

সীমিত ওভারের ক্রিকেটে একের পর এক ভালো পারফরম্য়ান্স শ্রীলঙ্কায় সফরে হার্দিকের সামনে টেস্টের আসরের দরজা খুলে দেয়। অভিষেক টেস্টেই বিস্ফোরক ব্য়াটিং করে অর্ধ-শতরান করেন। শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে টেস্টে সিরিজের তৃতীয় ম্য়াচে আবার ম্য়াচের সেরাও হন। ওই ম্য়াচে হার্দিক ৯৬ বলে আটটি চার ও সাতটি ছক্কার দৌলতে ১০৮ রান করেন।

শ্রীলঙ্কা সফরে দলের সম্পদ হয়ে ওঠার সঙ্গে নির্বাচকদের মনেও আস্থা তৈরি করে নিয়েছেন এই অলরাউন্ডার। আর তার জেরেই সদ্য়সমাপ্ত অস্ট্রেলিয়া সিরিজে তাঁকে আবারও সুযোগ দেওয়া হয়। ওয়ান-ডে সিরিজে ব্য়াট হাতে ২২২ রান ও বল হাতে ৬টি উইকেট তুলে নেওয়ায়, সিরিজ সেরা হন হার্দিক।

নিউজিল্য়ান্ডের বিরুদ্ধে আগামী বাইশ অক্টোবর থেকে তিন ম্য়াচের একদিনের সিরিজ খেলতে নামছে টিম ইন্ডিয়া। হার্দিক এই সিরিজে অধিনায়ক বিরাট কোহলির তুরুপের তাস হয়ে উঠতে চলেছেন বলে বিশেষজ্ঞদের অভিমত। টিম ইন্ডিয়ার এই তরুণ অলরাউন্ডারের সাম্প্রতির পারফরম্য়ান্সের কারণে নিউজিল্য়ান্ডের অধিনায়ক চিন্তায় আছেন। কেন উইলিয়ামসন বলেছেন, হার্দিককে সামলাতে তাঁদের বেগ পেতে হতে পারে আসন্ন সিরিজে। সেজন্য় মানসিক প্রস্তুতি আগে থেকেই নিয়ে রেখেছেন কিউয়িরা।

তবে, হার্দিকের প্রশংসাও করেছেন কিউয়ি অধিয়ানক। গত এক-দুবছরে নিশ্চিতভাবেই বলতে হবে, হার্দিক ভালো খেলছে। আইপিএলেও দেখেছি। আবার আমাদের বিরুদ্ধে গত সিরিজেও, ভালো বল করেছিল। এবার তো ও ব্য়াট হাতেও দলের হয়ে অবদান রাখছে। ওর মতো একজন পরিপূর্ণ অলরাউন্ডার পেলে যে কোনও দল খুশি হবে। কিউয়ি অধিনায়ক এরপর বলেন, ফাস্ট-বোলিং অলরাউন্ডার হওয়ায় টিম ইন্ডিয়ার জন্য় হার্দিক বড় সম্পদ। কারণ, ভারতে ভালো স্পিন বোলার তৈরি হয় বলে সবাই জানে। সেখানে একজন ফাস্ট বোলার তৈরি হয়েছে, যে বেশ জোরে বল করতে পারে, আবার ব্য়াটিংয়ের সময় বলকে বাউন্ডারির ওপারে পাঠাতেও পারে, সত্য়ি অবাক করে দেওয়ার মতো ব্য়াপার।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *