সিরিজের প্রথম ম্যাচে জয় সত্ত্বেও বিতর্ক! ডাগ আউটে বসে ওয়াকিটকি ব্যবহার করে বিতর্কে বিরাট 1

কিউয়িদের বিরুদ্ধে টি২০ সিরিজের প্রথম ম্যাচে ভারত সহজেই জয় তুলে নিয়েছেন। ঘরের মাঠ হওয়ায় এই জয় ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলির কাছেও স্মরণীয়। ঘরের মাঠে সহজ জয় সেই সঙ্গে ঘরের ছেলে নেহেরাজির অবসর গ্রহন নিয়ে নানা খবর তৈরিও হয়েছে। কিন্তু ম্যাচের বাইরেও এই ম্যাচ ঘিরে উঠে আসছে অন্যান্য খবরও। কি সেই খবর? বুধবারের ম্যাচে ভারতীয় ডাগআউটে বসে ভারত অধিনায়ক বিরাটকে ওয়াকিটকি তে কথা বলতে দেখা যায়। আর তা নিয়েই শুরু হয়েছে যাবতীয় বিতর্ক। কিছু কিছু মিডিয়ার দাবি আইসিসির নিয়ম ভেঙেছেন বিরাট। এ ব্যাপারে বিসিসিআইয়ের এক সক্রিয় আম্পায়ারের কাছে গোটা বিষয়টি জানিয়ে বিরাট আদৌ আইসিসির কোনো নিয়ম ভেঙেছে কিনা জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, ‘ দলের সাপোর্ট স্টাফরাই খেলা চলাকালীন ওয়াকিটকি ব্যবহার করে থাকেন। একজন ক্রিকেটারও তা ব্যবহার করতে পারে প্রয়জনীয় অনুমতি নিয়ে”। মিডিয়ায় প্রকাশিত একটি খবরে জানা গেছে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক বিসিসিআই আধিকারিক জানিয়েছেন যে বিরাট ওয়াকিটকি ব্যবহারের জন্য আইসিসির অ্যান্টি করাপশন ইউনিটের কাছ থেকে যথাযোগ্য অনুমতি নিয়েছিলেন। সিরিজের প্রথম ম্যাচে জয় সত্ত্বেও বিতর্ক! ডাগ আউটে বসে ওয়াকিটকি ব্যবহার করে বিতর্কে বিরাট 2অর্থাৎ তার মানে এই দাঁড়ায় যে ভারত অধিনায়ক কোনো নিয়ম ভাঙেন নি, সেই সঙ্গে ওই যন্ত্রটি ব্যবহারের যথাযোগ্য অনুমতি পেয়েছিলেন।আইসিসির নিয়মাবলির ৪ নং ধারায় যোগাযোগের বিভিন্ন মাধ্যম ব্যবহারের যে সমস্ত নিয় রয়েছে সেগুলি হল যথাক্রমে, ৪.১.১ কোনো ব্যক্তিই খেলা চলাকালীন মোবাইল সঙ্গে রাখা ও ব্যবহার করতে পারবে না। খেলা চলাকালীন ইন্টারনেটের ব্যবহারও করা যাবে না পিএমওএ এরিয়ায়। সিরিজের প্রথম ম্যাচে জয় সত্ত্বেও বিতর্ক! ডাগ আউটে বসে ওয়াকিটকি ব্যবহার করে বিতর্কে বিরাট 3৪.১.২ খেলা চলাকালীন যে কোনো কারণেই হোক কোনো ব্যক্তি ল্যাপটপ বা ওই জাতীয় কোনো বস্তু সঙ্গে রাখতে বা ব্যবহার করতে পারবে না এরিয়ায়। ৪.১.৩ পিএমওএ এরিয়ায় কোনো ব্যক্তিই কল করার বা রিসিভ করার জন্য স্টাটিক বা ল্যান্ড লাইন কোনো ধরনেরই টেলিফোন রাখতে পারবেন না। তবে আইসিসির ৪.৩.১ কোডে বলা আছে যে পিএমওএ এরিয়ায় খেলোয়াড়রা ড্রেসিং রুম এবং ডাগআউটের মধ্যে যোগাযোগের জন্য ওয়াকিটকির ব্যবহার করতে পারেন। এই সব বিতর্ক বাদ দিলে বুধবার সন্ধ্যা ভারত অধিনায়কের কাছে উপভোগ্যই ছিল বলতে হবে। স্লগ ওভারে তার আগুন ঝরানো ব্যাটিং কোটলার দর্শকদের যথে আনন্দ দিয়েছে। ভারত অধিনায়ক যে নিজের ব্যাটিং উপভোগ করছিলেন তা তার খেলাতেই স্পষ্ট। এছাড়াও নেহরার এদিন ক্রিকেট কেরিয়ারের শেষ ম্যাচ হওয়ায় তা নিয়েও যথেষ্ট আবেগ দেখান বিরট। খেলা শেষ হবার পর বিরাট নিজে আশিস নেহেরাকে কাঁধে তুলে মাঠও প্রদক্ষিন করেন। এদিনই ৩৮ বছর বয়েসি ওই বাঁ হাতি পেসার নিজের ঘরের মাঠে ক্রিকেটকে বিদায় জানালেন।

সিরিজের প্রথম ম্যাচে জয় সত্ত্বেও বিতর্ক! ডাগ আউটে বসে ওয়াকিটকি ব্যবহার করে বিতর্কে বিরাট 4

suvendu debnath

কবি, সাংবাদিক এবং গদ্যকার। শচীন তেন্ডুলকর, ব্রায়ান লারার অন্ধ ভক্ত। ক্রিকেটের...

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *