দ্বিতীয় টি-২০ ম্য়াচে দলের ব্য়াটসম্য়ানরা অত্য়াধিক মাত্রায় হতাশ করায়, রাজকোটে সিরিজ জয়ের আশায় লাগাম লেগেছে। একদিকে যেমন ভালো, আবার অন্য়দিকে নেতিবাচক দিকও রয়েছে। ভালো বলতে, সিরিজের তাপ-উত্তাপ শেষ ম্য়াচ তিরুবনন্তপুরম পর্যন্ত বজায় থাকল। ক্রিকেট সিরিজের আগ্রহটা জিইয়ে থাকলে মাঠ ভরার পাশাপাশি টিভির পর্দায় উৎসুক দর্শকরা চোখ দিয়ে বসে থাকবেন। ব্র্য়ান্ড ক্রিকেটের প্রসারে আদর্শ আবহাওয়া যাকে বলে। এবার নেতিবাচকর দিকটার কথা বলা যাক। প্রথম ম্য়াচ জেতার পর দ্বিতীয় ম্য়াচে হারা মানে উংনিং স্ট্রিক ব্রেক হওয়া। সিরিজ যদি ভারত জেতেও, উইনিং স্ট্রিক বজায় রেখে জিতেছে বলতে পারবে না। কারণ, ধারাবাহিকতা দরকার যে কোনও স্টেজে সফল হতে গেলে। ধারাবাহিকতার অভাব হলে ছন্দপতন হতে বাধ্য়।
টি-২০ ফরম্য়াটে নিউজিল্য়ান্ড একেবারে অপ্রতিরোধ্য়। এই ফরম্য়াটের এক নম্বর দলের মতোই খেলেছেন কিউয়িরা গত শনিবার (চৌঠা নভেম্বর)। চল্লিশ রানের তফাতে ভারতের মতো দলকে ভারতের মাটিতে হারানো নিঃসন্দেহে প্রশংসাযোগ্য়। তিন ম্য়াচের সিরিজ ১-১ ফলে দাঁড়িয়ে।
রাজকোটে টস হওয়ার পর থেকে ম্য়াচের শেষ বল পর্যন্ত বিরাটের দলের জন্য় কোনও কিছুই পরিকল্পনা মাফিক খাটেনি। কিউয়ি অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন প্রথমে ব্য়াট করার যে সিদ্ধান্ত নেন, তার পুরোপুরি ফায়দা লুটে নেন দুই ওপেনার কলিন মুনরো ও মার্টিন গাপটিল। ১০৫ রানের পোক্ত গোড়াপত্তনের পর আর কিই বা করার থাকতে পারে বিপক্ষ দলের বোলারদের। ৪৫ রান করে গাপটিল ফিরে যাওয়ার পর রাজকোটে অভিষেক হওয়া হায়দরাবাদের তরুণ ফাস্ট বোলার মহম্মদ সিরাজ কিউয়ি অধিনায়ককে তুলে নেন অল্প সময়ের ব্য়বধানে। কিন্তু, মুনরো একপ্রান্তে অবিচল থেকে সব আশা শেষ করে দেন। তাঁর ওই ১০৯ রানের অপরাজিত ইনিংসটাই ভারতকে প্রথম থেকে ব্য়াকফুটে ঠেলে দেয়। নির্ধারিত ২০ ওভারে ২ উইকেট হারিয়ে ১৯৬ রান, এই ছিল রাজকোটে প্রথম ইনিংসে ব্র্য়াকক্য়াপ যোদ্ধাদের স্কোর।
দ্বিতীয় ইনিংসে ভারত নৈতিকভাবে নুয়ে পড়েছিল মাঠে নেমেছিল পাল্টা মার দেওয়ার আগেই। ফর্মে থাকা দুই ওপেনার শিখর ধওয়ন ও রোহিত শর্মা ডাহা ফেল, প্রথম বারো বলের মধ্য়েই এক অঙ্কের স্কোর করেই প্য়াভিলিয়নের পথ ধরেন। বর্তমান অধিনায়ক বিরাট কোহলি এবং প্রাক্তন অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি ছাড়া আর কেউই বড়াই করার মতো রান করতে পারেননি। ধোনি ৪৯ রানে করে আউট হয়ে গেলেও বিরাট ৬৫ রান করেন। মুম্বইয়ের তরুণ ব্য়াটসম্য়ান শ্রেয়স আইয়র ২৩ রান করলেও, চাপে ভরা পরিস্থিতি বিরাটের মোটেই উচিত হয়নি নিজে না নেমে তাঁকে ঠেলে দেওয়া। ক্রিজে দলের অধিনায়ক অতক্ষণ কাটালেন, অথচ স্কোর বোর্ডে জ্বলজ্বল করছে, ২০ ওভারে ভারতের স্কোর ১৫৬/৭ – চল্লিশ রানে ম্য়াচ হারল ভারত, এটা একেবারেই মেনে নেওয়া যায় না। ধোনিকে অত নিচে না নামিয়ে আরও একটু আগে নামানো দরকার, রাজকোটে ম্য়াচে তা প্রমাণ হয়ে গিয়েছে।
ম্য়াচের পর বিরাট বলেন, ”নিউজিল্য়ান্ড খুব ভালো ব্য়াট করেছে। একসময় আমার মনে হয়েছিল, ওরা ২২০-২৩০ স্কোর করবে। বুমরাহ আর ভুবিকে কৃতিত্ব দিতে হবে তার চেয়ে অনেক কম রানে ওদের ধরে রাখার জন্য়। তবে, ব্য়াটিং আমরা ভালো করতে পারিনি। ২০০ রান তাড়া করার সময়, সব ব্য়াটসম্য়ানকে দায়িত্ব নিয়ে খেলতে হয়। একজন ব্য়াটসম্য়ানকে একদিক ধরে রেখে ২০০ ওপরে স্ট্রাইক রেট রেখে রান করে যেতে হয়। এমএস শেষ দিকে খুব ভালো খেলেছে। কিন্তু, আমরাই বিশেষ কিছু করতে পারিনি।”
প্রথম তিন ব্য়াটসম্য়ানের ওপর অতিরিক্ত নির্ভরতা এবং নিয়মিত ম্য়াচ খেলেও মিডল অর্ডার ও লোয়ার-মিডল অর্ডার রোজ রোজ ব্য়াটিং করার সুযোগ না পাওয়ারও যে একটা নেতিবাচক প্রভাব পড়ে বিরাটের কথায় প্রমাণ হয়ে গিয়েছে। ”বড় শট নিতে গেলে এরকমটাই হয়। বেশি মাত্রায় স্ট্রাইক না পেলে এরকমই হয়। আমাদের ইনিংসের প্রথমার্ধে দরকার না থাকলেও ১৩-১৪ ওভারের পর দরকার ছিল। টসেও হেরেছি আমরা। যেটা করতে চেয়েছিলাম শুরু থেকে সেটাও হয়নি। আমরা ভালো খেলতে পারিনি।”

SHARE

আরও পড়ুন

অ্যারণ ফিঞ্চ ভারত আসার আগে দিলেন হুঙ্কার, বললেন এই পরিকল্পনার অন্তর্গত ভারতকে তাদের মাটিতেই দেব মাত

গত রবিবারই অস্ট্রেলিয়ার সীমিত ওভারের অধিনায়ক অ্যারণ ফিঞ্চের নেতৃত্বে মেলোবর্ন রেনেগেডসের দল বিগব্যাশ লীগের খেতাব জিতেছিল। এখন...

এই বোলারের বিরুদ্ধে নন স্ট্রাইকার এন্ডে থাকা পছন্দ করেন বিরাট কোহলি, স্বয়ং করলেন খোলসা

ভারতীয় দলের অধিনায়ক বিরাট কোহলির জন্য এখনো পর্যন্ত ক্রিকেটের কেরিয়ার দুর্দান্ত থেকেছে। অধিনায়ক বিরাট কোহলি এখনো পর্যন্ত...

অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে সিরিজের আগে যুবরাজ সিংহের সঙ্গে ফুটবল খেলতে দেখা গেল মহেন্দ্র সিং ধোনিকে, ভিডিয়ো ভাইরাল

অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে সিরিজের আগে যুবরাজ সিংহের সঙ্গে ফুটবল খেলতে দেখা গেল মহেন্দ্র সিং ধোনিকে, ভিডিয়ো ভাইরাল
ভারতীয় দলকে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ২৪ ফেব্রুয়ারি থেকে দুটি টি-২০ আর তারপর ২ মার্চ থেকে পাঁচটি ওয়ানডে ম্যাচের...

সেহবাগ,ধবনের পর শহিদদের পরিজনদের সাহায্যের জন্য এগিয়ে এলেন মহম্মদ শামি

সেহবাগ, ফজল আর ধবনের পর শহিদদের পরিজনদের সাহায্যের জন্য এগিয়ে এলেন মহম্মা শামি
পুলওয়ামতে ১৪ ফেব্রুয়ারি সিআরপিএফদের জওয়ানদের উপর সন্ত্রাসী হামলা হয়েছিল। এতে ৪০ এরও বেশি জওয়ান শহিদ হয়েছেন। এটা...

জঙ্গি হামলা নিয়ে গম্ভীরের মন্তব্যের পাল্টা জবাব দিলেন আফ্রিদি !

জম্মু ও কাশ্মীরের পুলওয়ামা হামলায় ৪২ জন জওয়ান শহীদ হয়েছেন । আহত হয়েছেন অনেকেই, যারা এখন চিকিৎসাধিন...