পিএনবি কান্ডে পরোক্ষে নাম জড়ালো বিরাটের, পিএনবির সঙ্গে গাঁটছড়া ছিন্ন করার কথা ভাবছেন তিনি

পিএনবি কান্ডে পরোক্ষে নাম জড়ালো বিরাটের, পিএনবির সঙ্গে গাঁটছড়া ছিন্ন করার কথা ভাবছেন তিনি 1

এই মুহুর্তে পাঞ্জাব ন্যাশানাল ব্যাঙ্কের দুর্নীতিতে গোটা দেশই নড়ে গিয়েছে। ১১ হাজার কোটি টাকার দুর্নীতি এই মুহুর্তে সকলেরই আলোচনার বিষয়বস্তু হয়ে দাঁড়িয়েছে। দেশের অর্থনীতিকে রীতিমতো বেকায়দায় ফেলে দিয়ে দেশ ছেড়ে পালিয়েছেন আন্তর্জাতিক স্বর্ণ ব্যবসায়ি নীরব মোদি। যার জোরে বেকায়দায় পড়ে গিয়েছেন খোদ প্রধানমন্ত্রীও। প্রতিদিনই বিরোধীদের আক্রমনের মুখে পড়তে হচ্ছে নরেন্দ্র মোদীকেও। এমনই যখন দেশের পরিস্থিতি তখন এই পিএনবি ব্যাঙ্কের দুর্নীতিতে অন্যভাবে নাম জড়িয়ে গেল ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলিরও। প্রসঙ্গত ২০১৬ থেকেই পাঞ্জাব ন্যাশানাল ব্যাঙ্কের ব্র্যাণ্ড অ্যাম্বাসাডর বিরাট। দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের ব্যাবসা বাড়াতে ভাবমূর্তি ফেরানোর জন্যই ব্রান্ড অ্যাম্বাসাডার বানানো হয়েছিল জাতীয় দলের এই তারকাকে। কিন্তু এই মুহুর্তে যা পরিস্থিতি তাতে দেশের ব্যাঙ্কিং ইতিহাসে সবথেকে বড় ব্যাঙ্কিং স্ক্যামের ঘটনায় পিএনবি শীর্ষ কর্তাদের ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন উঠে পড়েছে। সেই সঙ্গ কালিমালিপ্ত হয়েছে ব্যাঙ্কের ভাবমূর্তিতেও।

পিএনবি কান্ডে পরোক্ষে নাম জড়ালো বিরাটের, পিএনবির সঙ্গে গাঁটছড়া ছিন্ন করার কথা ভাবছেন তিনি 2

এই পরিস্থিতিতে কি করবেন বিরাট? নিজের স্বচ্ছ ভাবমূর্তি নিয়ে কি সরে দাঁড়াবেন? তবে সূত্রের মোতাবিক এই সম্ভাবনাই প্রবল হচ্ছে দিন কে দিন। একটি সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত রিপোর্টে জানানো হয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজ নিয়ে ভারত অধিনায়ক ব্যস্ত থাকলেও দেশের এই ব্যাঙ্কিং স্ক্যাম নিয়েও যথেষ্ট খোঁজ খবর রাখছেন তিনি। ওই সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত রিপোর্টে বিরাটের এক ঘনিষ্ঠ জানিয়েছেন, “ দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম রাষ্ট্রায়াত্ত্ব ব্যাঙ্ক পাঞ্জাব ন্যাশানাল ব্যাঙ্কের এই দুর্নীতি সহজে মানুষের মন থেকে মুছবে না। তাই বিরাট বেশি দেরী না করেই হয়ত এই ব্যাঙ্কের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডারের পদ থেকে সরে দাঁড়াবেন”। সরে দাঁড়ানোর কারণও জানিয়েছেন ওই বিরাট ঘনিষ্ঠ।

পিএনবি কান্ডে পরোক্ষে নাম জড়ালো বিরাটের, পিএনবির সঙ্গে গাঁটছড়া ছিন্ন করার কথা ভাবছেন তিনি 3

তিনি বলেন, “ অন্যান্য অনেক তারকার মতই বিরাট নিজেও চাইবেন না এমন কোনো সংস্থার সঙ্গে জড়িত থাকতে যাদের নাম দুর্নীতিতে জড়িয়েছে। যেমন নির্মান সংস্থা আম্রপালী গ্রুপের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ ওঠায় ধোনি তাদের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করেছিলেন”। টিভির পর্দায় বিরাটকে দেখা যায় পিএনবির অ্যাডে সাধারণ মানুষকে জানাতে, “আমার পিএনবি দলে যুক্ত হন এবং ডিজিটাল ট্রানজাকশনের উপর পান রিওয়ার্ড পয়েন্ট’। তবে এরপর যে বিরাটকে আর ওই কথা বলতে দেখা যাবে না তা নিয়ে নিঃসন্দেহ হওয়াই যায়। এখন দেখা যাক দেশে ফেরার পর বিরাত কবে পিএনবির সঙ্গে তার গাঁটছড়া ছিন্ন করেন।

suvendu debnath

কবি, সাংবাদিক এবং গদ্যকার। শচীন তেন্ডুলকর, ব্রায়ান লারার অন্ধ ভক্ত। ক্রিকেটের...

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *