জাদেজার পরিবর্ত হওয়ার বিন্দুমাত্র ইচ্ছে নেই : অক্ষর প্য়াটেল 1

ভারতীয় উপমহাদেশের বাইরে ক্রিকেটে খেলিয়ে দেশের ক্রিকেটাররা ভারতে খেলতে এলে সুইপ শটের ওপর জোর দেন বেশি করে। কারণ, ভারতে এসে স্পিনারদের বিরুদ্ধে সফল হওয়ার আর কোনও টোটকা জানা নেই তাঁদের। রান করা নয়, স্পিনের ফাঁদে পা না দিয়ে উইকেট বাঁচানো প্রথম লক্ষ্য়। সীমিত ওভারের ক্রিকেট সিরিজে নিউজিল্য়ান্ড ক্রিকেট টিমের ব্য়াটসম্য়ানরাও একই পদ্ধতিতে ভরসা রেখেছেন এবার। কেউ কেউ সফল হচ্ছেন, আবার কেউ কেউ ব্য়র্থ।

সীমিত ওভারের ক্রিকেট সিরিজের প্রথম ধাপ ওয়ান-ডে সিরিজে কেন উইলিয়ামসেনের নেতৃত্বাধীন কিউয়ি টিম শুরুটা ভালো করলেও, সিরিজ যত এগিয়েছে এবং এখন দ্বিতীয় ধাপে পড়েছে, ততই দিশেহারা হয়ে পড়েছেন তাঁরা। বিরাট কোহলির টিমের বোলারদের কিছু পরিকল্পনার রহস্য় ভেদ করতেও কুলকিনারা পাচ্ছেন না ব্ল্য়াকক্য়াপরা। ভারতের তরুণ স্পিনার অক্ষর প্য়াটেল একদিনের ক্রিকেট সিরিজের সময় এবারের সফরে কিউয়িদের সবচেয়ে সফল ব্য়াটসম্য়ান টম ল্য়াথামকে পুনে ম্য়াচে  যেভাবে ঠকিয়ে আউট করেছেন, ওখানেই তার প্রমাণ। বিরাটের ভারত এখন স্পিন বিভাগেও নতুন নতুন কায়দা রপ্ত করেছে, বিদেশি ব্য়াটসম্য়ানদের বিব্রত করার জন্য়।

ওয়াংখেড়েতে প্রথম ম্য়াচে সুইপ শটের টোটকায় ভারতকে বধ করার পর পুনেতেও সেই একই পরিকল্পনা নিতে যান ল্য়াথাম। কিন্তু, অক্ষর ততটাই চালাক বোলার। রাউন্ড দ্য় উইকেট বল করতে এসে যে ডেলিভারিতে ল্য়াথামকে তিনি আউট করেন, বলটা দ্রুত গতির ছিল তুলনায় এবং সেই সঙ্গে ফুলার ডেলিভারি। ফরে সুইপ শট খেলতে গিয়ে ঠকে যান তিনি। অক্ষর ও আরেক রিস্ট স্পিনার যুজবেন্দ্র চহল ইদানিং তাঁদের ডেলিভারিতে পেস ও লাইনের হেরফের করছেন। ফলে বিপক্ষ ব্য়াটসম্য়ানের মনসংযোগে একটু চিড় ধরলেই উইকেট আসতে বাধ্য় শটের টাইমিং ভুল হয়ে গেলে। ফলে সুইপ শট খেলে স্পিন থেকে পার পাওয়া যাবে, সে দিনকাল আর নেই।

ক্রিকেট খেলা যেমন আধুনিক হয়েছে, ভারতীয় দলও তেমন সময়ের সঙ্গে বদলেছে। আঙুলের কারিকুরি করা স্পিন বোলার দিনদিন কমে আসছে ক্রিকেট বিশ্বে। বর্তমান সময়টা রিস্ট স্পিনারদের দখলে চলে যাচ্ছে আসতে আসতে। এই কারণেই রবিচন্দ্রন অশ্বিন ও রবীন্দ্র জাদেজার মতো দুই অভিজ্ঞ বোলারকে সীমিত ওভারের ক্রিকেট থেকে দূরে সরিয়ে দিয়েছে বিসিসিআই। অনেক ফিঙ্গার স্পিনার আবার সফল হওয়ার জন্য় কব্জির মোচড় ব্য়বহার করাও রপ্ত করা শুরু করে দিয়েছেন ডেলিভারিতে স্পিনের পরিমাণ বাড়াতে।

ফিরে আসা যাক অক্ষরের কথায়। ল্য়াথাম ও কিউয়ি অধিনায়ক উইলিয়ামসন দিল্লিতে প্রথম টি-২০ ম্য়াচে ভারতীয় স্পিন বোলিংয়ের ফাঁদ থেকে বেরনোর চেষ্টা করলেও, সফল হননি। বরং যে টোটকায় এতদিন ভারতীয় স্পিনারদের বধ করার পরিকল্পনা নিতেন বিদেশি ক্রিকেটাররা, সেই সুইপ শট খেলতেই বাধ্য় করেন তাঁরা।

শনিবার (চৌঠা নভেম্বর) দ্বিতীয় টি-২০ ম্য়াচের আগে শুক্রবার অক্ষর বলেন, প্রথম ম্য়াচে ওরা সুইপ খেলার চেষ্টা করছিল। আমরা জানতাম, ওরা ওই চেষ্টাই করবে। সেই মতো পরিকল্পনা নিয়েও রেখেছিলাম আমরা। আগামী ম্য়াচেও আমরা আগে থেকে পরিকল্পনা নিয়ে রাখব কি কি পরিকল্পনা ওরা নিতে পারে সেই ভেবে। উইকেটের দুই প্রান্ত থেকে বল করে যাবো লাইন, লেন্থ ও বলের গতিতে হেরফের এনে।

সীমায়িত ওভারের ক্রিকেটে প্য়াটেল ও চহল যেভাবে বল করছেন ইনিংসের মাঝের ওভারগুলিতে, তাতে সমালোচকদের প্রশংসা আদায় করে নিয়েছেন দুজনেই। চহলের সঙ্গে তাঁর জুটি গড়া নিয়ে অক্ষর বলেন, রিস্ট স্পিনারদের কাজই হল, আক্রমণাত্মক পরিকল্পনা নেওয়া। কারণ, ফিঙ্গার স্পিনারদের তুলনায় রিস্ট স্পিনাররা উইকেট থেকে বাড়তি স্পিন আদায় করে নেয়। ফিঙ্গার স্পিনারের কাজ হলো, ব্য়াটসম্য়ানদের বেঁধে রাখা। দুদিক থেকে চাপ বাড়তে থাকলে উইকেট পড়তে শুরু করে।জাদেজার পরিবর্ত হওয়ার বিন্দুমাত্র ইচ্ছে নেই : অক্ষর প্য়াটেল 2

চলতি সিরিজের প্রথম টি-২০ ম্য়াচে ভারতীয় বোলারদের মধ্য়ে সবচেয়ে ইকোনমিকাল ছিলেন অক্ষর। রিস্ট স্পিনার কুলদীপ যাদবের ধারাবাহিকতা অভাব চলে আসায় টিম ম্য়ানেজমেন্ট অক্ষরকে সেই রোলটা দিয়েছে। তাছাড়া অক্ষর দলে থাকা মানে ব্য়াটিং গভীরতা বাড়া। জাদেজা বাদ পড়ার পর স্পিনিং-ব্য়াটিং অলরাউন্ডারের যে সামান্য় অভাব হয়েছিল, সেটা মিটিয়ে দিয়েছেন। তবে, যে যাই বলুক জাদেজার পরিবর্ত হিসেবে ভারতীয় দলে নিজেকে দেখতে মোটেই খুশি নন অক্ষর। বললেন, ওইসব কথা আমি মাথায় রাখি না। কারও পরিবর্ত হওয়ার বিন্দুমাত্র ইচ্ছা নেই আমার। আমার ফোকাস একটাই, পরবর্তী ম্য়াচে কি করব! দলে নিজের জায়গা পাকা করার কথা আমি মাথায় রাখি না। একটা ম্য়াচে ভাল বল করলে, পরবর্তী ম্য়াচে আমার জায়গা এমনিই হবে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *