কলকাতা ও মুম্বাই জানিয়ে দিলো তারা কত জন খেলোয়াড়কে ধরে রাখবে! 1

ভারতের প্রাক্তন অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনির তাঁর পুরনো দল চেন্নাই সুপার কিংসে ফেরার সম্ভাবনার জল্পনা এখন তুঙ্গে। নির্বাসনের সাজা কাটিয়ে ফেরা সিএসকে ফ্র্য়াঞ্চাইজি এখন তাদের ঘুঁটি সাজাতে ব্য়স্ত। কতজন ক্রিকেটারকে তারা ধরে রাখতে চায়, তা নিয়ে সমর্থকদের কৌতূহল বাড়িয়েই চলেছে দুবারের আইপিএল চ্য়াম্পিয়নরা। আইপিএলের গভর্নিং কাউন্সিল জানিয়ে দিয়েছে, ২০১৮ আইপিএলে কামব্য়াক করতে চলা দুই ফ্র্য়াঞ্চাইজির সামনে প্রস্তাব রাখা হবে, তাদের অনুপস্থিতিতে গত দুবছর গুজরাত লায়ন্স ও পুনে রাইজিং সুপারজায়ান্টসে খেলা ক্রিকেটারদের তাদের পুরনো দলের ভিত্তিতে গণ্য় করা হবে। কারণ, গুজরাত ও পুনে টিমকে দুবছরের জন্য় নেওয়া হয়েছিল। এখন আর তাদের অস্তিত্ব নেই।

আইপিএলে একাদশ সংস্করণের আগে সমস্ত ক্রিকেটারদের নতুন করে নিলামে চড়ানো হবে। অকশন বসবে এজন্য়। বড় বড় দেশি-বিদেশি তারকাদের দলে পেতে আবার টাকার থলি ছোঁড়াছুঁড়ি চলবে। একাদশ আইপিএলের জন্য় নিলামে ক্রিকেটার কেনার মোট অঙ্কের পরিমাণ বাড়ানো হতে পারে বলে জানা গিয়েছে। ষাট কোটি টাকা থেকে বাড়িয়ে খরচের পরিমাণ পঁচাত্তর বা আশি কোটি অঙ্ক ছুঁতে পারে।

বেশিরভাগ ক্রিকেটারদেরই নতুন টিমে খেলতে দেখা যাবে। তবে, আইপিএলের গভর্নিং কাউন্সিল একজন ভারতীয় ও দুজন বিদেশি ক্রিকেটারকে দলে রেখে দেওয়ার প্রস্তাব দেবে আগামী মাসে হতে চলা বৈঠকে। অনেক ফ্র্য়াঞ্চাইজি এই সংখ্য়া পাঁচ করার প্রস্তাব দিতে চাইলেও, বিসিসিআই চায় তা যেন তিনের মধ্য়েই থাকে। আগামী মাসে ওয়ার্কশপ অনুষ্ঠিত হলে তখন ফ্র্য়াঞ্চাইজিদের নিয়ে বৈঠকে বসবে কাউন্সিল, তারপরেই সব পরিষ্কার হয়ে যাবে। নভেম্বর মাসের প্রথম বা দ্বিতীয় সপ্তাহে এই বৈঠক হওয়ার কথা।

একটি বেসরকারি সংবাদমাধ্য়মের খবর, ফ্র্য়াঞ্চাইজিগুলিকে ইতিমধ্য়েই অলিখিতভাবে জানিয়ে দিয়েছে কাউন্সিল। সরকারিভাবে তা বৈঠকের দিন জানানো হবে। বাকি পাঁচ ফ্র্য়াঞ্চাইজি এখনও নিজেদের তাস লুকিয়ে রাখলেও, নীতা আম্বানির মুম্বই ইন্ডিয়ান্স, শাহরুখ খানের কলকাতা নাইট রাইডার্স ও রাজ কুন্দ্রা-শিল্পা শেট্টির রাজস্থান রয়্য়ালস তাদের পক্ষ স্পষ্ট করে দিয়েছে। মুম্বই পাঁচ ক্রিকেটারকে রেখে দিতে চায়। এর অর্থ বৈঠকে তিন ক্রিকেটারের কোটায় সিল মোহর পড়লে, তালিকা ছাঁটতে হবে নীতা আম্বানিকে। অন্য়দিকে, কলকাতা তিন জনকে রেখে দিতে চায়। অধিনায়ক গৌতম গম্ভীরের নাম এই তালিকায় থাকা পাকা। রাজস্থান ফ্র্য়াঞ্চাইজি কোনও ক্রিকেটারকেই ধরে রাখতে চায় না। নতুন করে দল সাজাতে চায় তারা। ফ্র্য়াঞ্চাইজি নাম পরিবর্তন করার প্রস্তাব দেবে তারা, এমনটাই জানা গিয়েছে।

উল্লেখ্য়, ২০১৩ আইপিএলে ফিক্সিংয়ে করার দায়ে ২০১৫ সালে নির্বাসিত করা হয়েছিল সিএসকে ও রাজস্থান ফ্র্য়াঞ্চাইজিকে। এই দুই টিমের ক্রিকেটাররাই গুজরাত ও পুনে দলের হয়ে খেলেছিলেন।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *