ভারতীয় সীমিত ওভারের আন্তর্জাতিক দলের নেতৃত্বভার নিজের হাতে তুলে নেওয়ার আগের দিন শনিবার সাংবাদিকদের বিরাট কোহলি সোজা-সাপটা বলে দিয়েছিলেন, “ম্যাচে যে কোনও বিষয়ে মহেন্দ্র সিং ধোনির মতামত গ্রহণ করে সিদ্ধান্ত নেবেন তিনি। বিশেষ করে ডিসিশন রিভিউ সিস্টেম-এর (ডিআরএস) সময়।” প্রসঙ্গত, ধোনির ক্যাপ্টেন্সি ছাড়ার পরে, রবিবার পুণেতে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে পাকাপাকিভাবে একদিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচে অধিনায়ক হিসাবে অভিষেক হয়েছে বিরাট কোহলির।

আর মাঠে ধোনির মাথা যে কত ক্ষুরধার, রবিবারের ম্যাচে তা আরও একবার প্রমাণিত হল। প্রথমে ব্যাট করতে নামা ইংল্যান্ডের ইনিংসে তখন ২৭-তম ওভার চলছে। ব্যাট হাতে ইংল্যান্ড অধিনায়ক ইয়ন মর্গ্যান, এবং বল করছেন হার্দিক পান্ডিয়া। ওভারের শেষ বলটি ছিল একটি গুড-লেন্থ বল যেটি থার্ড-ম্যানের দিকে খেলার চেষ্টা করেন মর্গ্যান। কিন্তু বল ব্যাটের কানা ছুঁয়ে ধোনির গ্লাভসে গিয়ে জমা পড়ে। ভারতীয় দলের খেলোয়াড়েরা আম্পায়ারের কাছে আউটের আবেদন করেন। তবে তাঁদের সেই আবেদনে কর্ণপাত করেননি আম্পায়র সি কে নন্দন।

তবে ধোনি নিশ্চিত ছিলেন যে, বল মর্গ্যানের ব্যাটে লেগেছে। সদ্য প্রাক্তন অধিনায়কের মনোভাব বুঝে সে ব্যাপারে বিরাট ধোনির সঙ্গে কথা বলেন। আগে যেমন আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে সিদ্ধান্ত নিতেন ধোনি, এক্ষেত্রেও দেখা যায় তিনি বিরাটকে বলছেন, থার্ড আম্পায়রের কাছে গিয়ে ডিআরআস চাইতে। যা শুনে বাধ্য ছাত্রের মত বিরাট থার্ড-আম্পায়রের কাছে রিভিউ চেয়ে বসেন।

তাতে দেখা যায়, বল ব্যাটে লেগেছে আর স্বাভাবিকভাবেই মর্গ্যানকে আউট দেওয়া হয়। এক্ষেত্রে থার্ড আম্পায়ার সিদ্ধান্ত জানানোর আগেই দেখা যায়, ধোনি সতীর্থদের সঙ্গে সেলিব্রেশন করছেন।